স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: আমফানের তাণ্ডবে পশ্চিমবঙ্গের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলার জন্য রাজ্যকে এক হাজার কোটি টাকা দেওয়ার ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু এটাই সম্পূর্ণ প্যাকেজ, নাকি এটা অগ্রিম, তা স্পষ্ট নয় বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “তিনি (প্রধানমন্ত্রী) বলেছেন, এ ব্যাপারে তিনি পরে সিদ্ধান্ত নেবেন। কিন্তু এটা অগ্রিম হতে পারে বলেও তিনি জানিয়েছেন।”

শুক্রবার বাংলার আমফান বিধ্বস্ত চেহারা দেখতে রাজ্যে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী।হেলিকপ্টারে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়কে নিয়ে দুই ২৪ পরগনার বিপর্যস্ত এলাকা ঘুরে দেখেন তিনি। দক্ষিণ ২৪ পরগনার, গোসাবা, কুলতলি, ডায়মন্ড হারবার-সহ বিভিন্ন এলাকা এবং উত্তর ২৪ পরগনার রাজারহাট, মিনাখাঁ, হিঙ্গলগঞ্জ, সন্দেশখালি, হাসনাবাদ, বসিরহাট আকাশপথে ঘুরে দেখেন তিনি। এরপরে বসির‌হাট কলেজে বৈঠক করেন।

সেখানেই প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, শীঘ্রই কেন্দ্রীয় টিম এসে রাজ্যের পরিস্থিতি দেখে ক্ষয়ক্ষতির হিসেব করবে। এর পরে কেন্দ্র অর্থের ব্যবস্থা করবে। আপাতত কেন্দ্র এক হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে রাজ্যকে। মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, “আমি বলেছি, আপনি কী দেবেন, আপনিই ঠিক করুন, আমরা আপনাদের বিশদ তথ্য জানিয়ে দেব।”

এদিকে, প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ আরজি জানিয়েছেন, দুর্যোগ পীড়িত মানুষদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে যেন সরাসরি ক্ষতিপূরণেরটাকা দেওয়া হয়। নাহলে সেই টাকা নয়ছয় হতে পারে। বঙ্গ বিজেপি সভাপতির এই মন্তব্যের পালটা দিয়েছেন কলকাতা পুরসভার প্রশাসক তথা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। তিনি বলেছেন, “যখন দু’জন বড় কথা বলে তখন ছোটদের চুপ করে থাকতে হয়। এই সৌজন্যটা বোধহয় ওনারা ভুলে গিয়েছেন।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।