নয়াদিল্লি:  হিসাব অনুযায়ী অনুযায়ী আগামী রবিবার শেষ হচ্ছে দ্বিতীয় পর্যায়ের লকডাউন। এরপর ফের লকডাউন বাড়বে কিনা তা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা। দেশের যা পরিস্থিতি তাতে আরও লকডাউন বাড়ানোর পক্ষেই জোরাল সওয়াল করছেন বিশেষজ্ঞরা। যদিও ইতিমধ্যে বেশ কিছু ছাড়পত্র দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

এই পরিস্থিতিতে লকডাউনের ভবিষ্যৎ ঠিক করতে জরুরি বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল ও অসামরিক বিমান পরিবহনমন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী। এছাড়াও রয়েছেন উচ্চপদস্থ সচিবরা। যদিও এখনও এই বৈঠক কি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেই বিষয়ে স্পষ্ট কিছু জানা যায়নি। তবে সূত্রের খবর, লকডাউন এখনই পাকাপাকিভাবে কিছু উঠছে না।

আজ শুক্রবার গোটা দেশে লাল, ওরেঞ্জ এবং সবুজ জোনে ভাগ করা হয়েছে। সেই মতো কিছু ছাড় তিন তারিখের পর থেকে দেওয়া হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে। ১৩০টি জেলাকে রেড জোনের আওতায় ফেলেছে কেন্দ্র।

জানা গিয়েছে যে নতুন তালিকা তৈরি হয়েছে, তাতে আরও ১৩০টি রেড জোন ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়াও ২৮৪টি জেলাকে অরেঞ্জ জোনের আওতায় নিয়ে আসা হয়েছে। ৩১৯টি গ্রিন জোন ঘোষণা করা হয়েছে। কেন্দ্রের তরফ থেকে বলা হয়েছে রাজ্য ও কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলগুলিতে তেসরা মের পরেও এই তালিকা অনুযায়ী নিয়ম বলবৎ হবে।

মেট্রো শহরগুলি যেমন মুম্বই, কলকাতা, দিল্লি, হায়দরাবাদ, পুনে, বেঙ্গালুরু ও আহমেদাবাদকে রেড জোনের আওতায় ফেলা হয়েছে। ৩০শে এপ্রিল এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মন্ত্রিসভার সচিবের সঙ্গে বৈঠকের পরেই নতুন জোনভিত্তিক তালিকা তৈরি করা হয়। রাজ্যগুলির মুখ্য সচিব ও স্বাস্থ্যসচিবদের সাথে আলোচনা চলে ওই বৈঠকে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সচিব প্রীতি সুদান জানান, প্রত্যেক রাজ্যের স্বাস্থ্যসচিবদের থেকে বিস্তারিত তথ্য নেওয়া হয়েছে। এলাকাভিত্তিক তথ্য ধরে জোন ভাগ করার কাজ করা হয়েছে। ডাবলিং রেট ও করোনা আক্রান্তের হারের ওপর ভিত্তি করে রেড, অরেঞ্জ ও গ্রিন জোন ভাগ করা হয়েছে। যদি কোনও জেলা থেকে গত ২১ দিনে করোনা আক্রান্ত না মেলে, তবে ওই এলাকা গ্রিন জোন।

পয়লা মে পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি রেড জোনের সংখ্যা উত্তরপ্রদেশে (১৯)। এরপরে রয়েছে মহারাষ্ট্র(১৪), তামিল নাড়ু(১২), দিল্লি (১১), পশ্চিমবঙ্গ (১০)। সবথেকে বেশি গ্রিন জোন রয়েছে অসম(৩০), অরুণাচল প্রদেশ (২৫), ছত্তিশগড় (২৫), মধ্যপ্রদেশ (২৪), ওডিশা (২১) ও উত্তরপ্রদেশ (২০)। এদিকে, দ্বিতীয় দফার লকডাউন যখন শেষের পথে, তখনও গ্রিন জোন থেকে একাধিক জায়গা রেড জোনে চলে এল বাংলায়।

কলকাতা, হাওড়া, মেদিনীপুর ও উত্তর ২৪ পরগণা আগেই ছিল রেড জোনে। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হল আরও বেশ কয়েকটা নাম। তালিকায় রয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগণা, পশ্চিম মেদিনীপুর, দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কালিম্পং, মালদহ।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।