স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: নরেন্দ্র মোদী দেশের সবচেয়ে বড় দুর্যোগ৷ মঙ্গলবার বাঁকুড়ার রানিবাঁধে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের হয়ে প্রচারে গিয়ে এভাবেই ফের নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি বলেন, বাংলায় কতবার বন্যা হয়েছে, তবু কোনও দিন বাংলামুখো হয়নি। কোনওদিন টিকি পাওয়া যায়নি আর এখন বসন্তের কোকিল হয়ে এসেছে, বলছে মিত্রোঁ ভোট দে দো, কেন ভোট দেবে?

প্রত্যেকদিনই নিয়ম করে নিজের স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে নরেন্দ্র মোদীকে আক্রমণ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷এদিনও সেই একই মেজাজে মমতা বলেন, “আচ্ছে দিন আনবে বলেছিল৷ আসেনি৷ বদলে গ্যাস, ডিজেল, পেট্রোলের দাম বাড়িয়েছে৷ নোটবাতিল করেছে৷ এবার ব্যাংকগুলোকেও বাতিল করে দেবে৷পাঁচ বছর ধরে শুধু বিদেশ ঘুরে বেরিয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। সাধারণ মানুষের জন্য কিছু করেননি। ওঁকে ভোট দেবেন কেন? এখন ব্যাঙ্কের নোট বাতিল করেছে কোনটি ব্যাঙ্ক বাতিল করে দেবে।দাঙ্গা লাগানো ছাড়া আর কোনও কাজ নেই বিজেপির। পাঁচ বছরে কোনও উন্নয়ন করেনি ওরা। শুধু মানুষ খুন করেছে।দেশের সবচেয়ে বড় দুর্যোগ মোদী৷”

বাঁকুড়ায় রুখুসুখু মাটিতে জল সমস্যা সমাধানে রাজ্য সরকারের কাজের খতিয়ান তুলে ধরতে গিয়ে বেশ প্রাসঙ্গিকভাবেই মুখ্যমন্ত্রী টেনে আনেন ডিভিসির ভূমিকার প্রসঙ্গ৷ ক্ষোভ প্রকাশ করে তাঁর অভিযোগ, ‘প্রতিবার ডিভিসি অতিরিক্ত জল ছাড়ে, বাঁকুড়া বন্যায় ভেসে যায়৷ কতবার বলা হয়েছে, ঠিকমত ড্রেজিং করতে৷ বলতে বলতে মুখ ব্যথা হয়ে গেছে৷ কোনও কাজই করে না৷ ডিভিসির জন্যই প্রতিবছর বাঁকুড়া, বীরভূম, হাওড়ায় বন্যা হয়৷’

মোদী সরকারের আমলে ১২ হাজার কৃষক আত্মঘাতী হয়েছে বলেও অভিযোগ তোলেন মমতা। তিনি বলেন, “বাংলায় আমরা কৃষকদের খাজনা মকুব করে দিয়েছি। এমনকি কৃষিজমিতে মিউটেশন ফিও মকুব করে দিয়েছি। শস্য বিমা খাতেও এক হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে আমাদের সরকার। বিজেপির আমলে ১২ হাজার কৃষক না খেতে পেয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন।”