নয়াদিল্লি: ভারত কৃষিভিত্তিক দেশ। এই দেশের অর্থনীতির প্রধান ভিত্তিই হচ্ছে কৃষি। কৃষকের স্বার্থ এখন অন্যতম প্রধান একটি রাজনৈতিক ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেটাকেই এখন হাতিয়ার করতে চলেছে মোদী সরকার।

কৃষকদের ঋণ মুকুব করা একটা রাজনৈতিক ফ্যশন। গত মাস থেকে যা চালু হয়েছে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের হাত ধরে। বিজেপিকে হঠিয়ে তিন রাজ্যের ক্ষমতা দখল করে প্রথমেই কৃষি ঋণ মুকুব করার কথা ঘোষণা করে কংগ্রেস। নির্বাচনের আগে এই ঋণ মুকুবের প্রতিশ্রুতি দিয়েই ভোট পেয়েছিল রাহুল ব্রিগেড।

এবার সেই কৃষি ঋণ নিয়ে আরও বড় চমক দিতে চলেছে মোদী সরকার। তবে ঋণ মুকুব নয়। মোদী সরকারের পরিকল্পনা একটু ভিন্ন। তেমনই জানাচ্ছে সংবাদ সংস্থা রয়টার্স।

কৃষকদের জন্য বিনা সুদে ঋণ দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে মোদী সরকার। আগামী মাসের শুরুর দিনে বাজেটেই হবে সেই ঐতিহাসিক ঘোষণা। নানাবিধ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে কর ছাড়, বীমা, স্বাস্থ্য সহ থাকছে কৃষি ঋণে বিপুল ছাড়ের মতো বড় ধরনের প্রকল্প।

এরই মধ্যে সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে বিনা সুদে কৃষকদের ঋণ। সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানাচ্ছে, এই ঋণের টাকা সসরাসরি কৃষকদের ব্যংক অ্যাকাউন্টে দিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে মোদী সরকার। পাশাপাশি এই ঋণের জন্য কোনও সুদ নেওয়া হবে না। তবে ঠিক কী উপায়ে বা কোন শর্তে এই ঋণ দেওয়া হবে তা নিয়ে এখনও চূড়ান্ত কিছু জানানো হয়নি রয়টার্সের প্রতিবেদনে।

এই ধরনের একগুচ্ছ প্রকল্প বাস্তবায়িত করতে খুব স্বাভাবিকভাবেই দরকার বিপুল অর্থ। সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানাচ্ছে যে এই প্রকল্পগুলির জন্য এক লক্ষ কোটি টাকা খরচ করতে চলেছে মোদী সরকার। ২০১৯ লোকসভা ভোটের আগে ফেব্রুয়ারি মাসে যে অন্তবর্তী বাজেট পেশ হবে সেখানে এই চমক দেখা যাবে। এই বিষয়ে অর্থ মন্ত্রকের মুখপাত্রকে মেইল মারফত প্রশ্ন করা হয়েছিল সংবাদ সংস্থা রয়টার্সের পক্ষ থেকে। কিন্তু সেই প্রশ্নের কোনও জবাব আসেনি বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

বাজেট ঘাটতি ভারতের অর্থনীতির একটা বড় সমস্যা। সেই সমস্যা সমাধানের জন্য বিভিন্ন সময়ে বাজেটে কাট-ছাট করা হয়েছে। কিন্তু এই ধরনের প্রকল্প যে সেই ভাবনায় ব্যাঘাত ঘটাবে তা বলাই বাহুল্য। একই সঙ্গে এই বিপুল অর্থ ব্যয় অর্থনীতির স্বাভাবিক গতিতেও ধাক্কা দেবে।