file picture

নিউজ ডেস্ক, বোলপুর: পাঁচ বছরে নরেন্দ্র মোদী শুধুই বিদেশ ভ্রমণ করেছেন। এমন অভিযোগ প্রায়শই তুলে থাকেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার বোলপুরে এসে মমতাকে তারই জবাব দিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। বিদেশ সফর করে আদতে দেশের কী লাভ হয়েছে, সেই হিসেবই দিলেন তিনি।

এদিন তিনি বলেন, আগে কোনও ইস্যুতে সমর্থন পেতে সমস্যায় পড়তে হত ভারতকে। আর আজ সব দেশে এক ডাকে ভারতের পাশে এসে দাঁড়িয়ে যায়। বিদেশ সফরের জন্যই তেল বা গ্যাসের দাম কমানো সম্ভব হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

বলেন, আগামিদিনে আরও দামি তেল ভারতে আসার কথা ছিল। কিন্তু রফতানিকারী দেশগুলির সঙ্গে কথা বলেছে মোদী সরকার। বন্ধুত্বের সঙ্গে কথা বলে সেই দাম কমানো হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

দুর্নীতি প্রসঙ্গে বলেন, একাধিক দেশের সঙ্গে ভারতের চুক্তি হয়েছে যাতে ওইসব দেশের ব্যাংকে ভারতীয়রা যদি টাকা রাখে, তাহলে ভারতের হাতে রিয়্যাল টাইম তথ্য আসবে। ফলে কালো টাকার মালিকরা সমস্যায় পড়বে।

একাধিক দেশ থেকে চুরি হওয়া মূর্তি কীভাবে ফিরিয়ে এনেছেন, সেকথাও উল্লেখ করেন মোদী। তিনি জানান, একাধিক সরস্বতী বা হনুমানজির মূর্তি চুরি হয়েছে বিভিন্ন সময়। মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর ফিরিয়ে এনেছেন সেসব মূর্তি।

মোদী আরও বলেন, কিছুদিন আগেই ভারতের এসেছিলেন সৌদি আরবের যুবরাজ মহম্মদ বিন সলমন। মোদী বলেন, তাঁকে বলে হজযাত্রার কোটা বাড়িয়ে দিয়েছেন তিনি। এদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যুবরাজকে আমি বলেছি, ভারতে মুসলিমদের আর্থিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে, তারা হজে যেতে চাইছে।’ হজে যাওয়ার কোটা যাতে বাড়িয়ে দেওয়া হয়, সেই আর্জি তিনি জানিয়েছিলেন সৌদি যুবরাজের কাছে। আর সেই আবেদনে সাড়া দিয়েই কোটা ২ লক্ষ বাড়িয়ে দিয়েছে সৌদি।

সৌদির কাছে আরও একটা আবেদন করেছিলেন মোদী। সেই দেশের জেলে ৮০০ -র বেশি ভারতীয় বন্দি ছিলেন। ভারতে আসার পর সৌদি যুবরাজকে তাঁদের ছেড়ে দেওয়ার আবেদন করেন মোদী। এদিন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বলেছিলাম যে রমজান মাস আসছে। ওদের ছেড়ে দিন। ১২ ঘণ্টার মধ্যে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে তাঁদের। সেই খবর চেপে দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন মোদী। অথচ আরব আমিরশাহী থেকে মোদীকে পুরস্কার দেওয়া হয়েছে বলে তাঁকে অপবাদ দেওয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করেন মোদী।