জয়পুর: প্রচারে আইপিএলের সঙ্গেও সন্ত্রাসদমন প্রসঙ্গ জুড়ে দিলেন মোদী৷ ভোট বৈতরণী পারে গুরুত্বপূর্ণ নতুন ভোটরদের মন জয়৷ লক্ষ্যপূরণে তাই প্রধানমন্ত্রী মোদীর হাতিয়ার আইপিএল৷

২০০৯ ও ২০১৪-র স্মৃতি উস্কে মোদী এদিন পূর্বসুরি মনমোহন সিং সরকারকে তীব্র কটাক্ষ করেন৷ ভোট থাকতেই পারে, কিন্তু কেন জনপ্রিয় এই টুর্নামেন্টের জন্য দেশের মাটিতে সুরক্ষার বন্দোবস্ত করা গেল না তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী৷

আরও পড়ুন: মুসলিম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্যাম্পাসেই নিষিদ্ধ বোরখা, বিতর্ক

শুক্রবার রাজস্থানের কারাউলিতে প্রচার করেন প্রধানমন্ত্রী৷ সেখানেই আইপিএলকে জড়িয়ে নিশানা করেন আগের সরকারকে৷ প্রচারসভায় তিনি বলেন, ‘‘দেশের তরুন প্রজন্ম আইপিএল নিয়ে প্রবল উৎসাহী৷ কিন্তু আইপিএলের ইতিহাসে দু দু’বার এই টুর্নামেন্ট বিদেশের মাটিতে খেলতে বাধ্য করা হয়েছে৷ কারণ সেই সময়কার কেন্দ্রের সরকার জঙ্গিদের প্রচণ্ড ভয় পেত৷ সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে সেই সরকারের কোনও চেষ্টাও ছিল না৷’’

মোদীর সংযোজন, ‘‘২০০৯ ও ১৪ সালে আইপিএল ও সোকসবা ভোট একসঙ্গে হওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল পুলিশ প্রশাসন ভোটের কাজে ব্যস্ত থাকবে৷ তাই আইপিএল করা সম্ভব নয়৷’’ এরপরই প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারের আমলের খতিয়ান তুলে ধরেন৷ বলেন, ‘‘ভোট চলছে৷ এবার তার মধ্যেই হনুমান জয়ন্তী, রামনবমী পালিত হয়েছে৷ সামনেই রমজান৷ তাও পালন করা হবে নির্বিঘ্নেই৷ কিন্তু আইপিএলও চলছে একই সঙ্গে৷’’

পুলওমা, বালাকোটে এয়ার স্ট্রাইকের পর কেন্দ্রের মোদী সরকার জিরো টলারেন্সের নীতি গ্রহণ করে৷ মোদী জানিয়ে দেয় জঙ্গি দমনে তাঁর সরকার পিছপা হবে না৷ জঙ্গিদমনের সহ্গে দেশাত্ববোধকে এক করে তুলে ধরা হয় গেরুয়া শিবিরের প্রচারে৷ দিন করেক আগেই এসেছে কূটনৈতিক সাফল্য৷ জতু ইশ জঙ্গি সংগঠন মাসুদ আজহারকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে রাষ্ট্রসংঘ৷ যাকে মোদী সরকারের কৃতীত্ব বলে দাবি করছে বিজেপি৷ এবার সেই দাবির তালিকায় জড়িয়ে নেওয়া হল আইপিএলকেও৷

আরও পড়ুন: তাণ্ডবের জন্য তৈরি থাকুন, আজ আইপিএলের সর্বকালীন রেকর্ড ভাঙতে পারেন রাসেল

প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালে লোকসভা নির্বাচনের সঙ্গেই আইপিএল টুর্নামেন্ট হওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু ইউপিএ সরকার জানিয়ে দেয় ভোটের কাজে পুলিশ প্রশাসন ব্যস্ত থাকবে৷ তাই হাইপ্রোফাইল ওই টুর্নামেন্ট ভোটের সময় করা যাবে না৷ তাই সেইবার আইপিএল অনুষ্টিত হয় দক্ষিণ আফ্রিকায়৷ একই ঘটনা ঘটে পাঁচ বছর পর ২০১৪ সালেও৷

এদিন প্রচারে আইপিএলের জনপ্রিয়তাকে পুঁজি করেন প্রধানমন্ত্রী৷ জানান, তাঁর নাম শুনলে জঙ্গিরাও এখন ভয়ে কাঁপে৷ তাই সুষ্টুভাবেই একদিকে বোট, অন্যদিকে বাকি সব বিষয়গুলি বাস্তবায়িত হতে পারছে৷ যা সরকারে অন্যতম সাফল্য৷