নয়াদিল্লি: মোদীর বায়োপিকের উপর জারি থাকছে কমিশনের নিষেধাজ্ঞা৷ বুধবার সুপ্রিম কোর্টকে একথা জানিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন৷ ফলে ১৯ মে’র আগে বিবেক ওবেরয় অভিনীত মোদী বায়োপিক মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ৷ যদিও শুক্রবার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে সুপ্রিম কোর্ট৷

গত ১৫ এপ্রিল নির্বাচন কমিশনকে মোদীর বায়োপিক দেখার নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট৷ ছবিটি দেখার পর কমিশন তাদের সিদ্ধান্ত মুখবদ্ধ খামে আদালতের কাছে জমা দেবে৷ এমনই রায় দেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ৷ সেই মতো ২২ এপ্রিল খামের উপর ‘পিএম নরেন্দ্র মোদী’ লিখে কমিশন তা জমা দেয় সুপ্রিম কোর্টের কাছে৷ এদিন কমিশনের একটি সূত্র জানিয়েছে, তারা আগের সিদ্ধান্তেই অটল থাকছে৷ মোদীর বায়োপিক এখন মুক্তি করা যাবে না৷

প্রসঙ্গত, নির্বাচন কমিশন ছবি মুক্তিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করার পরই শীর্ষ আদালতে ছোটেন ছবির নির্মাতারা৷ বিরোধীদের দাবিকে মান্যতা জানিয়ে ১১ এপ্রিল নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিক মুক্তির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে নির্বাচন কমিশন৷ জানিয়ে দেয়, এখনই মুক্তি পাবে না নরেন্দ্র মোদীর বায়োপিক৷ কারণ হিসাবে কমিশন জানিয়েছে, ভোটের জন্য গোটা দেশে আর্দশ আচরণ বিধি চালু আছে৷ তাই এখনই ছবিটি মুক্তি পেলে আর্দশ আচরণবিধি লঙ্ঘন হতে পারে৷

কমিশনের এই সিদ্ধান্তে বিরোধীদের জয় হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে৷ ভোটের সময় ছবি মুক্তি বন্ধের দাবিতে বিরোধীরা শুরু থেকেই সোচ্চার ছিল৷ তাদের অভিযোগ, এতে বিজেপি অপ্রত্যাশিত সুবিধা পাবে৷ তাছাড়া ছবির বিষয়বস্তু যাঁকে কেন্দ্র করে সেই মোদী নিজেই ভোটের প্রার্থী৷ ফলে তাঁর ছবি দেখে ভোটাররা প্রভাবিত হতে পারেন৷ তাই অবিলম্বে ছবিটি রিলিজে নিষেধাজ্ঞা জারির দাবি জানান৷

মোদীর বায়োপিকে নিষেধাজ্ঞার দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে পিটিশন জমা পড়ে৷ তখনও ছবিটি সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পায়নি৷ সেই কথা উল্লেখ করে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, ছবিটি এখনও সেন্সর বোর্ডের ছাড়পত্র পায়নি৷ তাই মোদীর বায়োপিক মুক্তিতে স্থগিতাদেশ দেওয়ার নির্দেশ খারিজ করে দেয় শীর্ষ আদালত৷ তবে ছবিটি আর্দশ আচরণবিধি লঙ্ঘন করছে কিনা সেই সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার নির্বাচন কমিশনের উপর ছেড়ে দেয় সুপ্রিম কোর্ট৷