স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট প্রকাশের পর থেকেই কমিশন এবং কেন্দ্রকে আক্রমণ করে চলেছেন তৃণমুল নেত্রী মমতা। কিন্তু এই কমিশনের সৌজন্যেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন বলে দাবি করলেন মোদী।

বৃহস্পতিবার নির্বাচনী প্রচারে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার দমদমে এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে তাঁর পুরনো দিনের স্মৃতিচারণার কথা বললেন নরেন্দ্র মোদী। রাজ্যে বাম জমানায় বিরোধী নেত্রী মমতার অবস্থা এবং সেখান থেকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর পদে আসীন হওয়ার যাত্রাপথের কথা মনে করিয়েছেন মোদী।

এদিন দমদমে বক্তব্য রাখতে গিয়ে তৃণমূল নেত্রী মমতাকে উদ্দেশ্য করে মোদী বলেন, “দিদি আপবনি কেন ভুলে যাচ্ছেন বামেরাও আপনার জন্য এমনই জটিল পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল। এবং সাংবিধানিক সংস্থাগুলি পশ্চিমবঙ্গে নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করেছিল।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেন, “যদি এই সকল সাংবিধানিক সংস্থা এবং কেন্দ্রীয় বাহিনী না থাকতো, তাহলে আপনি আজ মুখ্যমন্ত্রী হতে পারতেন না।”

এদিন দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার মথুরাপুরে নির্বাচনী জনসভায় হাজির ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই জনসভা থেকেই প্রকাশ্যে বিজেপি এবং নির্বাচন কমিশনকে আক্রমণ করেন তিনি। প্রকাশ্য জনসভায় দাঁড়িয়েই তিনি বলেন যে নির্বাচন কমিশন হচ্ছে বিজেপির ভাই। সেই প্রসঙ্গেই দমদমের সভায় দাঁড়িয়ে মমতাকে উদ্দেশ্য করে ওই কথাগুলি বলেন মোদী।

বুধবার সাত দফার ভোটের প্রচার নিয়ে যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন। সেই সিদ্ধান্ত অনুসারে, আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার রাত ১০টার পর থেকে কোনও রাজনৈতিক দল পশ্চিমবঙ্গে প্রচার করতে পারবে না। রবিবার রাজ্যের তিন জেলার আট কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ। নিয়ম অনুসারে, শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রচার শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২০ ঘণ্টা আগেই প্রচার শেষ করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কমিশন। সংবিধানের ৩২৪ ধারা অনুযায়ী এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

এই বিষয়টি নিয়েই বেজায় চটেছেন তৃণমূলনেত্রী। তিনি বলেছেন, “গত রাতেই আমি জানতে পেরেছি যে বিজেপি নির্বাচন কমিশনে আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছে যাতে নরেন্দ্র মোদীর সভার পরে আর কোনও সভা করতে না পারি। নির্বাচন কমিশন এবং বিজেপির ভাই হয়ে গিয়েছে। কমিশন আগে নিরপেক্ষ সংস্থা ছিল কিন্তু এখন দেশের সবাই বলছে যে নির্বাচন কমিশন বিজেপির কাছে বিক্রি হয়ে গিয়েছে।”