পাটনা: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের আগে জমে উঠেছে সব পক্ষের প্রচার। একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলছে রাজনৈতিক দলগুলির পরস্পরকে আক্রমণ এবং প্রতিআক্রমণ।

প্রধানমন্ত্রী তথা বিজেপি শিবিরের প্রধান মুখ নরেন্দ্র মোদীর সৌজন্যে এমনই একটি বড় ঘটনার সাক্ষ্যী থাকল বিহারের আরারিয়া জেলা। শনিবার দুপুরের দিকে ওই রাজ্যে নির্বাচনী জনসভায় হাজির ছিলেন মোদী।

সেই সভায় বিরোধী কংগ্রেসকে আক্রমণ করতে গিয়ে টেনে এনেছেন সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গ। একই সঙ্গে সন্ত্রাসের সঙ্গে ধর্মকে মিলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করেছেন কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হচ্ছে, বিজেপির বিরুদ্ধে এই ধর্ম নিয়ে রাজনীতি এবং সন্ত্রাসের সঙ্গে ধর্মকে মিলিয়ে অভিযোগ উঠেছে। দেশের প্রায় সকল রাজনৈতিক দল এই অভিযোগ করেছে বিভিন্ন সময়ে।

এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে সন্ত্রাস এবং ধর্ম নিয়ে কংগ্রেসকে আক্রমণ করেছেন মোদী। তিনি বলেছেন, “দেশে একদিকে ভক্তির রাজনীতি নিয়ে ভোট হচ্ছে অন্যদিকে দেশভক্তি নিয়ে ভোট হচ্ছে।”

নিজের এই বক্তব্যের স্বপক্ষে যুক্তি দিতে গিয়ে ২০০৮ সালের মুওমই হামলার প্রসঙ্গ টেনে এনেছেন মোদী। জনসভায় শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেছেন, “মনে করুন ২৬/১১-তে মুম্বইয়ে সন্ত্রাসবাদী হামলা হয়েছিল। কংগ্রেস পরিচালিত কেন্দ্রের জোট সরকার কী করেছিল? তখন দেশের বীর জওয়ানেরা পাকিস্তানের মাটিতে ঢুকে বদলা নেওয়ার অনুমতি চেয়েছিল।” কিন্তু কংগ্রেস সরকার সেই অনুমতি দেয়নি বলে জানিয়েছেন মোদী।

ভোট ব্যাংকের রাজনীতির স্বার্থেই কংগ্রেস বদলার পথে হাঁটেনি বলে দাবি করেছেন নরেন্দ্র মোদী। তিনি বলেছেন, “সবাই জানতো যে মুম্বইয়ে হামলা চালানো জঙ্গিরা পাকিস্তানের ছিল। কিন্তু কংগ্রেস এবং তাদের শরিকেরা পাকিস্তানকে শাস্তি দেওয়ার বদলে হিন্দুদের সঙ্গে আতঙ্কবাদী শব্দ জুড়ে দেওয়ার ষড়যন্ত্রে মন দিয়েছিল।”