ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: কেন্দ্রে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি। দ্বিতীয়বার মানুষ বিশ্বাস করেছে নরেন্দ্র মোদীকে। তাই দেশের মানুষের আস্থা রাখতে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে চান তিনি। আর সেই জন্যই প্রত্যেকদিন ঠিক সকাল সাড়ে ৯টায় মন্ত্রীদের অফিস পৌঁছে যেতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

বাড়িতে বসে কোনও কাজ নয়, সকাল সকাল অফিসেই যেতে বলেছেন মোদী। একইসঙ্গে আরও বলেছেন যাতে লোকসভা অধিবেশন চলাকালীন কেউ দেশের বাইরে কোনও কাজ না রাখে। মোদী নিজের উদাহরণ দিয়ে বলেছেন, গুজরাতের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন সকালেই অফিস পৌঁছে যেতেন। আর তাতে অফিসারদের সঙ্গে কাজ করতে সুবিধাও হত।

মোদী আরও বলেছেন, যাতে প্রত্যেকদিন নিজের মন্ত্রকের কাজকর্মের ব্যাপারে অন্তত কিছুক্ষণ আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন মন্ত্রীরা। পাশাপাশি, মন্ত্রিসভার নতুন সদস্যদের কাজে সাহায্য করার কথাও বলেছেন সিনিয়র সদস্যদের। সেইসঙ্গে সাংসদদের সঙ্গেও কথা বলার নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রীদের। মোদী তাঁদের বুঝিয়েছেন যে মন্ত্রী আর সাংসদের মধ্যে বিশেষ কোনও তফাৎ নেই।

মোদী আরও বলেছেন, সব মন্ত্রকের তরফে যাতে একতা পঞ্চ বার্ষিকী পরিকল্পনা তৈরি করা হয় যা সরকার গঠনের ১০০ দিনের মধ্যেই কার্যকরী হবে।

এদিকে, মোদী সরকার সংসদের প্রথম অধিবেশনেই তাৎক্ষণিক তিন তালাক বন্ধের বিল পাশ করাতে চাইছে। মন্ত্রিসভা বুধবার এই সংক্রান্ত নতুন বিলে ছাড়পত্র দিয়েছে।

গত সরকারের শেষের দিকে, মেডিক্যাল কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া ভেঙে দিয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা পরিচালনার জন্য ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন তৈরির বিলও সংসদে পাশ করানো যায়নি। সেই বিলটিও এবারের বাজেট অধিবেশনে নিয়ে আসা হবে। কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে শিক্ষক নিয়োগের সময় আদালত গোটা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের বদলে প্রতিটি বিভাগ ধরে সংরক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছিল। তাতে ৭ হাজার পদে নিয়োগ আটকে রয়েছে। আদালতের ওই নির্দেশ নাকচ করতেও বিল আনা হবে।

এছাড়া, তফসিলি জাতি ও উপজাতির সংরক্ষণের সঙ্গে আর্থিক অনগ্রসর উচ্চবর্ণের জন্য ১০ শতাংশ সংরক্ষণ দেওয়া হবে। জম্মু-কাশ্মীরে নিয়ন্ত্রণ রেখা সংলগ্ন গ্রামের মানুষদের জন্য ৩ শতাংশ সংরক্ষণ দেওয়া হত। এবার আন্তর্জাতিক সীমান্ত সংলগ্ন জম্মু-সাম্বা-কাঠুয়ার ৪৩৫টি গ্রামের সাড়ে তিন লক্ষ মানুষকেও সংরক্ষণ দিতে বিল আনছে সরকার।