প্রদ্যুত দাস, জলপাইগুড়ি: স্মার্ট হলেন ক্ষুদ্র চা চাষীরা। কারণ তাঁদের জন্য তৈরি হল মোবাইল অ্যাপলিকেশন বা অ্যাপ। আপাতর পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে কাজ শুরু হয়েছে।

ক্ষুদ্র চা চাষী থেকে স্মার্ট চাষী তৈরি করে চা রফতানি বাড়াতে উদ্যোগী হলো ভারতীয় চা পর্ষদ। ক্ষুদ্র চা চাষী দের বিভিন্ন চা উৎপাদন সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যা কাটাতে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন হলো স্মার্ট ফোন অ্যাপের।

বহু চেষ্টা করেও শেড গার্ডেন এর তৈরি করা চা ২৩৫ মিলিয়ন কেজির বেশি বিদেশের বাজারে রফতানি করা যাচ্ছে না। কারণ প্রতিযোগিতার বাজারে শেড গার্ডেন এর চা এর মূল্য বেশি পড়ে যাচ্ছে। অথচ শ্রীলঙ্কা, চীন প্রভৃতি দেশে গুলি তাদের দেশের ক্ষুদ্র চা চাষী দের স্মার্ট চাষী তৈরী করে তাদের কমদামে উৎপাদিত চা দিয়ে ভারতে কে লাগাতার কঠিন প্রতিযোগিতা মুখে ফেলে দিচ্ছে। যার ফল ভারতের চা রফতানি বাজারে স্থিতাবস্থা।

যে সমস্ত কারন গুলির জন্য শেড গার্ডেন এর তৈরী চা এর দাম বেশি :-

১) অধিকাংশ চা বাগানের গাছের বয়স বেশি। ফলে কাচা চা পাতা উতপাদন কম।

২) বেশি সংখ্যক শ্রমিক ও অফিস মেইনটেইন খরচ কম পরিমান তৈরী চা পাতার উপর প্রভাব। ফল প্রোডাকশন চার্জ বেশি।

এবারে চা রফতানিতে ভারতীয় চা এর স্থিতাবস্থা কাটাতে বাংলার ক্ষুদ্র চা চাষীদের স্মার্ট তৈরি করে তাদের তৈরী উন্নত মানের চা নিয়ে আন্তর্জাতিক বাজারে হাজির হবার লক্ষ্যে এগিয়ে এলো ভারতীয় চা পর্ষদ। সাথে সহযোগিতায় SOLIDARIAD নামে এক সেচ্ছাসেবী সংস্থা।

ভারতীয় চা পর্ষদ এর সাস্টেনেবিলিটি বিষয়ক সম্পাদক সন্দীপ ঘোষ জানান একথা কোনো ভাবে অস্বীকার করা যায় না যে ভারতের মোট উতপাদিত চায়ের ৪৮% ক্ষুদ্র চা বাগান থেকে আসে। তাই আমরা একসাথে কাজ করতে নেমেছি। আমাদের পক্ষে সম্পূর্ণভাবে এক্সপার্টাইজ প্রোভাইড করার পরিকাঠামো নেই তাই আমরা নেদারল্যান্ডের এই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে যৌথ ভাবে কাজ করবো। যাতে আগামী তিন বছর পর থেকে আমাদের দেশে খুব ভালো মানের চা উৎপাদন হতে পারে।

SOLIDARIED এর এশিয়া কো অর্ডিনেটর (চা) রঞ্জন সরকার জানান আমরা দু’ভাবে এই ক্ষুদ্র চাষীদের প্রশিক্ষণ দেব। প্রথমত মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে চাষীরা তাদের চা গাছের বিভিন্ন সমস্যার ছবি বা ভিডিও তুলে পাঠাবে। আমরা তার বিজ্ঞান ভিত্তিক সমাধান প্রোভাইড করবো। এছাড়াও আমাদের বিভিন্ন এক্সপার্ট রা সরাসরি ফিল্ডে এসে চা সংক্রান্ত বিভিন্ন সমস্যার সমাধান বাতলাবেন।

ক্ষুদ্র চা চাষী দের সর্বভারতীয় সংগঠন CISTA এর সর্বভারতীয় সম্পাদক তথা জলপাইগুড়ি স্মল টি গ্রোয়ার্স এসোসিয়েশন এর সভাপতি বিজয় গোপাল চক্রবর্তী জানান ক্ষুদ্র চা চাষীরা সঠিক নিয়ম মেনে চা পাতা উৎপাদন করেন না এই অভিযোগ দীর্ঘ দিনের। আবার একই সাথে ভারতে উৎপাদিত মোট চায়ের প্রায় ৫০% আমরাই উৎপাদন করে থাকি।

তিনি আরো বলেন এই প্রজেক্ট এর মাধ্যমে প্রথম ধাপে ভারতে আসাম, তামিলনাড়ু সহ উত্তরবঙ্গ ৬০০০০ চা ক্ষুদ্র চা চাষীকে স্মার্ট চাষী তৈরী করা হবে। এর মধ্যে রাজ্য থেকে আপাতত শুধু মাত্র জলপাইগুড়ি জেলার ৫০০০ চা চাষী কে চিহ্নিত করা হয়েছে। এদের মধ্যে প্রতি ১০০ জন চা চাষী পিছু ১ জন করে মোট ৫০ জন লিড ফার্মারকে স্মার্ট চাষী তৈরির কাজ শুরু হলো। এই প্রক্রিয়া তে এই বিশেষ এপ খুব কাজে লাগবে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV