মেলবোর্ন: করোনাভাইরাসের কারণে লকডাউনে বাড়িতে বসে শারিরীক ট্রেনিংয়ের পাশাপাশি তাঁর বোলিং অ্যাকশনে সামান্য সংশোধন করেছেন বলে জানালেন অস্ট্রেলিয়ার বাঁ-হাতি পেসার মিচেল স্টার্ক৷ ঘণ্টায় ১০০ মাইল বেগে বল করার জন্য এমনটা করেছেন বলে দাবি করেন অভিজ্ঞ এই অজি পেসার৷

অস্ট্রেলিয়ার এই স্ট্রাইক বোলার অফ-সিজনে পেশীবহুল হয়ে উঠেছেন৷ তবে বোলিং অ্যাকশনে সংশোধন করার কারণ হিসেবে ঘণ্টায় ১০০ মাইল বেগ বল করার টার্গেট সেট করছেন ক্লার্ক। ভারতের বিরুদ্ধে আসন্ন গ্রীষ্মের ব্লকবাস্টারের আগে জিমে প্রচুর সময় কাটিয়েছে করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে৷ ঘণ্টায় ১০০ মাইলে বোলিং করার ক্লাবে রয়েছেন মাত্র কয়েকজন বোলার রয়েছেন৷ তবে বিশ্বের দ্রুততম বোলার হিসেবে ঘণ্টায় ১০০.২ মাইল বেগে বল করে রেকর্ড গড়েছেন পাকিস্তানের প্রাক্তন স্পিডস্টার শোয়েব আখতার৷ ২০০৩ সালে বিশ্বের দ্রুততম ডেলিভারিটি বেরিয়েছিল ‘রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস’-এর হাত থেকে৷

আর স্টার্ক অল্পের জন্য এই মাইলস্টোন ছুঁতে পারেননি৷ ২০১৫ সালে পারথে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘণ্টায় ৯৯.৭ মাইল বল করেছিলেন বাঁ-হাতি এই অজি পেসার৷
তবে তিনি মনে করেন, অতিরিক্ত পরিশ্রম কেবল তাঁকে গতির রেকর্ড ভাঙতে সাহায্য করবে না, চোট-আঘাত লাগা থেকেও বাঁচতে সহায়তা করবে।

ক্রিকেট ডটকম- দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে স্টার্ক বলেন, ‘এটি দুর্দান্ত লাগবে৷ তবে একই সঙ্গে আমি দু’বার ঘণ্টায় ১৬০ কিলোমিটার বেগে বোলিং করেছিলাম৷
আশা করি, এবার তেমনটা হবে না৷ যখন সবকিছু ঠিকঠাক চলছে, সেই ছন্দটি ঘটছে এবং কন্ডিশন অনুসারে, তখন আমি সেই গতিতে বল করতে পারব৷ সম্ভবত জিমের অতিরিক্ত সময় এবং অতিরিক্ত সময় বিশ্রামে থাকার ফলে আমি আবার টার্গেটে তাড়া করতে সক্ষম হব৷’

স্টার্ক আরও জানান, তিনি আগেও বোলিং অ্যাকশনটি টুইট করেছিলেন, যা তাঁকে তার চূড়ান্ত গতির মান ধরে রাখতে এবং রাডারকে সম্মোহিত করতে সাহায্য করেছিল। তিনি বলেন, “২০১৯-২০ মরশুমে ইংল্যান্ড সফরে আমি পুরোপুরি লাইন ও লেন্থে ধারাবাহিকতার ব্যপারে মানসিকতা স্থির করেছিলাম৷ তা আমাকে অ্যাশেজ সিরিজে দারুণ কাজে দিয়েছিল৷ এটি যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ তবে আমি মনে করি, সম্প্রতি ধারাবাহিকতা ধরে রাখারা পাশাপাশি আমি গতিও ধরে রাখতে পেরেছি৷ আমি এখনও দ্রুত বোলিং করতে চাই৷ আমি এ নিয়ে আপস করতে পারব না৷’

সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ডিসেম্বরের শুরু থেকে অস্ট্রেলিয়া সফরে যাবে বিরাটবাহিনী৷ কোহলির ভারত অস্ট্রেলিয়ায় চারটি টেস্ট খেলবে৷ তবে করোনা ভাইরাস মহামারীর কারণে এখনও ভেন্যু নিয়ে অনিশ্চিয়তা রয়েছে৷ শেষবার অস্ট্রেলিয়া সফরে টেস্ট সিরিজ জিতে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিল কোহলি অ্যান্ড কোং৷ কারণ এশিয়ার মধ্যে ভারতই একমাত্র দেশ, যারা অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতেছে৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও