প্রতীকী ছবি

নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: ফের শহরে অস্বাভাবিক মৃত্যু। দক্ষিন কলকাতার বৃদ্ধ দম্পতির খুনের কিনারা হতে না হতেই খিদিরপুরে এক চাঞ্চল্যকর মৃত্যু। উদ্ধার হল দুই’ভাইয়ের পচা-গলা দেহ ও পাশেই পড়েছিল সংজ্ঞাহীন অবস্থায় তাঁদের বোন। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়।

স্থানীয়দের বক্তব্য অনুযায়ী, একই বাড়িতে তিন জন থাকত দুই ভাই এক বোন। গত বুধবারের পর থেকে বাড়ি থেকে তাঁদের কাউকে বেরোতে দেখেননি প্রতিবেশীরা। শুক্রবার সকালে পাশের লোকজনেরা পচা গন্ধ পেয়ে সাউথ পোর্ট থানার পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ এসে দুভাইয়ের পচা গলা দেহটি উদ্ধার করে। খিদিরপুরের কার্ল মার্ক্স সরণীর একটি বাড়িতে দাদা ত্রিলোকিপ্রসাদ গুপ্ত (৫৮) ও ভাই ভোলাপ্রসাদ গুপ্ত(৫৩)-র সঙ্গেই থাকতেন শান্তি গুপ্ত (৫৬) নামে এক মহিলা বাস করতেন। তিনি সম্পর্কে তাঁদের বোন।

স্থানীয়দের থেকে খবর পেয়ে বাড়ির দরজা ভেঙে ভিতরে ঢুকে পচাগলা দেহ দুটি উদ্ধার করে পুলিশ। ঘরের মধ্যেই অচৈতন্য অবস্থায় পড়েছিলেন তাঁদের বোন শান্তি গুপ্ত। তাঁকে দ্রুত এসএসকেএম হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হলে তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুর কারণ এখনও অজানা। দেহ দু’টিকে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।

প্রাথমিকভাবে অনুমান, রহস্যজনক হলেও খুন বা খুনের চেষ্টা হয়নি। তবে কোনওভাবে ঝাঁঝালো গ্যাস থেকে বিষক্রিয়াতেই ওই দুই ভাই এবং তাঁদের বোনের মৃত্যু হয়েছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মৃতদের ঘরেই একটি জেনারেটর দেখতে পেয়েছেন তদন্তকারীরা। ঘরের জানলা, দরজাও বন্ধ ছিল। ফলে জেনারেটরের বিষাক্ত ধোঁয়ায় কোনওভাবে শ্বাসরোধ হয়ে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে কি না, তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলেই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ সামনে আসবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।