নয়াদিল্লি: মানুষের শরীরের পুরো ওজন তাঁর হাঁটুর উপর থাকে। এই সমস্যা কারও পক্ষে উপেক্ষা করা বিপজ্জনক হতে পারে। এই ভুলের ফল ভুগছে রাসেল পিপ্লিকা। তিনি কখনও ভাবতেই পারেননি যে, যে হাঁটুর জন্য তাঁকে বেশ কয়েক বছর স্কেটিং প্রতিযোগিতা থেকে বাইরে থাকতে হবে।

WebMD এর মাধ্যমে, রাসেল বলেন, , ‘হঠাৎ আমি একটা জোরে শব্দ শুনলাম অনুভব করলাম যেন আমার হাঁটু পাশ ফিরে গেছে। ব্যথা এতটাই ছিল যে আমি মাটিতে পড়ে গিয়ে হামাগুড়ি দিতে শুরু করি। ডাক্তার আমাকে পরামর্শ দিয়েছিলেন যে আমি যদি আর একবারও পায়ের ওপর ভর দি, তবে আমার হাঁটু চিরকালের জন্য নষ্ট হতে পারে।

হাঁটুর ব্যথা- হসপিটাল ফর স্পেশাল সার্জনস (নিউ ইয়র্ক) এর এমডি এবং স্পোর্টস মেডিসিন বিশেষজ্ঞ জর্ডান মেজেয়াল জানিয়েছেন, ‘যখন কোনও ব্যথা আপনার সক্ষমতা সীমাবদ্ধ করে, তবে সাধারণ যা কাজ আপনি করেন, তাই করুন। যদি কোনও অসুবিধা হয় তবে আপনার চেকআপ করা উচিত। এমন পরিস্থিতিতে নিয়মিত ব্যথা উপেক্ষা করা ঠিক হবে না।

অতিরিক্ত ওজন- স্থূলতা হাঁটুতে অস্টিওআর্থারাইটিসের ঝুঁকিও বাড়িয়ে তোলে। অতিরিক্ত দেহের ওজনও হাঁটু ব্যাথার কারণ হতে পারে। সিডিসির একটি রিপোর্ট বলছে তিনজনের মধ্যে দু’জন স্থূলতার কারণে অস্টিওআর্থারাইটিসে আক্রান্ত হন।ডায়েট এবং ব্যায়াম ওজন হ্রাস করার একটি ভাল উপায় তবে দুর্বল হাঁটুতে অনুশীলন করে ওজন হ্রাস করা কঠিন।

আঘাতের পরে আরও মনোযোগ দিন – হাঁটুতে আঘাতের পরে বিশ্রাম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি হাঁটুর ক্ষতি এবং চিকিত্সার উপর নির্ভর করে। এমন অনেক অ্যাথলেট আছেন যারা চোটের পরে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব মাঠে ফিরতে চান। কিন্তু তাঁদেরকে প্রথমে অর্থোপেডিক সার্জন, অ্যাথলেট প্রশিক্ষকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

অনুশীলনের সময় মনে রাখা দরকার – ওয়ার্কআউটের পরে এবং আগে স্ট্রেচিং এক্সারসাইজ করা খুব জরুরি। জিমে কঠোর পরিশ্রমের পাশাপাশি হালকা অনুশীলন করাও দরকার যাতে আপনার শরীর সুস্থ হয়ে উঠতে পারে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।