স্টাফ রিপোর্টার, দিঘা: দিঘায় মাঝ সমুদ্রে তলিয়ে যেতে যেতে কোনও রকমে বাঁচলেন পর্যটক৷ এই ঘটনায় তিন পর্যটককে গ্রেফতার করেছে দিঘা পুলিশ৷ দিঘা থানার ওসি বাসুকিনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় জানান পুলিশের নিষেধাজ্ঞাকে অমান্য করেই সমুদ্রে নেমেছিল ওই পর্যটকরা৷ তাঁরা ঝাড়গ্রামের বাসিন্দা বলে খবর৷

উল্লেখ্য, গরমের ছুটি আর জামাইষষ্ঠীর কারনে ভীড় জমে উঠেছে দিঘায়। পর্যটকদের নিরাপত্তা দিতে হিমসিম খাচ্ছে পুলিশ। তারই মাঝে মাঝ সমুদ্রে স্নান করতে গিয়ে ঝাড়গ্রামের এক পর্যটক তলিয়ে যায়। নুলিয়ারা উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

প্রশাসন সূত্রে ও দিঘা হোটেলিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে, প্রায় আড়াই লক্ষ পর্যটকের সমাগম ঘটেছে দিঘাতে। পুলিশ প্রশাসনের কড়া নজরদারি চলছে। সমুদ্রের বেশি গভীরে কাউকে নামতে দেওয়া হচ্ছে না৷ ওয়াচ টাওয়ার, স্পীডবোটেও নজরদারি চলছে। দিঘার কোন হোটেলেই আর তিল ধারণের জায়গা নেই৷

দিঘার আশপাশের স্থানীয় বাসিন্দারাও রুম ভাড়া দিয়েছেন পর্যটকদের বলে খবর। দূরদূরান্ত থেকে অনেক পর্যটক দিঘায় এসে রুম হোটেল না পেয়ে গাছতলায় রাত কাটিয়েছেন । বিগত পাঁচ দিনে নির্দিষ্ট ঘাটের বাইরে স্নানে নেমে এক পর্যটক কিশোরের মৃত্যু ঘটেছে৷ চার তলিয়ে যাওয়া পর্যটককে কোন রকমে উদ্ধার করেছে নুলিয়ারা৷ তারপরেই সমুদ্রে স্নান করা নিয়ে কড়া সতর্কতা জারি করে পুলিশ৷

দুদিন আগেই প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে দিঘায় বিপজ্জনক ঢেউয়ে স্নান করতে নামে কলকাতার এক পর্যটক৷ তাতেই ঘটে বিপত্তি৷ ওই জলেই তলিয়ে যায় যুবক৷ পুলিশ জানিয়েছে, নিখোঁজ পর্যটকের নাম মহঃ কোয়াইশ৷ ১৮ বছর বয়স৷ বাড়ি কলকাতার ৩৫নং ভগবানমন্ডল স্ট্রিট, নোয়াদা পাড়ায়৷ শুক্রবার দুপুর নাগাদ বন্ধুদের সঙ্গে সমুদ্রতটে আসে৷ তারা ছিল নিউ দিঘার ক্ষণিকা ঘাট ও পুলিশ হলিডে হোমের মাঝামাঝি জায়গায়৷

তখন ভরা জোয়ার৷ বড় বড় ঢেউ উঠছে সমুদ্রে৷ বিপদ বুঝে ওই জায়গা থেকে একাধিকবার পর্যটকদের তুলে দেয় পুলিশ। কিন্তু পুলিশের নির্দেশকে অমান্য করে সঙ্গীসাথীদের নিয়ে জলে নেমে পড়ে ওই যুবক। আচমকাই জলের তোড়ে ভেসে যায় কেউ কেউ৷ অন্যান্যরা কোনওরকমে পাড়ে চলে এলেও ওই যুবক তলিয়ে যায়৷ তারপর থেকে কোনও খোঁজ নেই৷

দিঘা থানার ওসি বাসুকিনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, ৯ জন বন্ধুর সঙ্গে নিউ দিঘার একটি হোটেলে এসে উঠেছিল ওই যুবক। দুপুরে স্নান করতে বিচে আসে৷ ওই সময় তাদের জলে নামতে বারণ করা হয়৷ কথা না শোনায় পুলিশ তাদেরকে তুলেও দেয়। কিন্তু তারপরেও ওরা জোর করে সমুদ্রে নেমে পড়ে৷ তাতেই ঘটে বিপত্তি। এই মুহূর্তে ৪টি বোট তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।