তমলুক: গভীর রাতে আগুন লাগল মন্ত্রীর বাড়িতে। যা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল পূর্ব মেদিনীপুরের পাঁশকুড়া এলাকায়।

নির্বাচনী সভা শেষ করে রবিবার ১১ টা নাগাদ পাঁশকুড়ায় নিজের বাড়িতে পৌঁছান মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র। বাড়িতে ঢোকার কিছু সময়ের মধ্যে দেখতে পান তার বাড়ির পেছনে কেউ বা কারা আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।

অল্প সময়ের মধ্যেই দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে থাকে আগুন। যার ফলে খুব স্বাভাবিকভাবেই আতংক ছড়ায় মন্ত্রী সৌমেন বাবু এবং তাঁর পরিবারের লোকেদের মধ্যে। খবর দেওয়া হয় পুলিশ এবং দমকল বাহিনীকে। যদিও ঘটনাস্থলে দমকল পৌঁছানোর আগেই স্থানীয়দের তৎপরতায় আগুন নিভিয়ে দেওয়া হয়।

এই ঘটনার ফলে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে শুরু করেছেন রাজ্যের জলসম্পদ উন্নয়ন দফতরের মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র। রাজ্যের মন্ত্রী হওয়ার কারণে তাঁর জন্য উপযুক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে থাকে। তবুও তাঁর বাড়িতে আগুন লাগার ঘটনায় চরম আতংকে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন সৌমেনবাবু।

চিন্তিত মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র বলেছেন, “কেউ বা কারা ইচ্ছাকৃতভাবে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।” ঘটনার পর রাতেই সাংবাদিকদের জানান, তিনি নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন। মন্ত্রীর এই ধরনের মন্তব্যকে কটাক্ষ করে বিরোধীরা বলছে, যেখানে রাজ্যে মন্ত্রী নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন সেখানে বাংলার মানুষকে এই সরকার কিভাবে নিরাপত্তা দেবে। সমগ্র ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.