নয়াদিল্লি: ২৯টি কৃষক সংগঠনকে ডাকা হয়েছিল আলোচনার জন্য। অথচ তারা গিয়ে দেখলেন সেখানে গরহাজির কৃষিমন্ত্রী। দিল্লির কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রীর দপ্তরে তাদের ডাকা হয়েছিল এবং ওই বৈঠকের আহবায়ক ছিলেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমার। অথচ বৈঠকে হাজির হন ওইলেন না মন্ত্রী। তিনি বৈঠকের জন্য শুধু তার দফতরের আধিকারিকদের পাঠিয়ে দিয়েছিলেন। যা দেখে স্বভাবতই ক্ষুব্ধ হন কৃষক নেতারা এবং ওই বৈঠক থেকে ওয়াকআউট করেন।

কৃষক নেতাদের সেখানে আসা ঘিরে বিক্ষোভ হতে পারে এমন আশঙ্কা করে সেখানে ভালোই পুলিশি বন্দোবস্ত রাখা হয়েছিল। বাসে করে কৃষক নেতাদের নিয়ে আসা হয়। কৃষিমন্ত্রী নেই জানতে পেরে ক্ষোভ বাড়ে তাদের। কৃষি ভবনের সামনে স্লোগান দেওয়া এবং ছিড়ে ফেলেন কেন্দ্রের তিনটি আইনের প্রতিলিপি। এদিনের বৈঠক বয়কট করলেও এই কৃষক নেতা কৃষি সচিবকে জানিয়ছেন, এই তিন আইন বাতিল না করা হলে আমাদের আন্দোলন চলবে।

এদিকে নরেন্দ্র সিং তোমার এই বিষয়ে মুখ না খুললেও অস্বস্তি বেড়েছে মোদী সরকারের। এমন ঘটনার জন্য প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় কেন্দ্রকে। এই বিষয়ে প্রশ্নের মুখে পড়ায় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভাদেকার জানিয়েছেন, ‌ এই বিষয়ে কেউ আলোচনা করতে চাইলে অবশ্যই বসা হবে। তিনি যুক্তি দেখান, কোন একটি বিশেষ কাজে আটকে যাওয়ায় বৈঠকে কৃষিমন্ত্রী আসতে পারেননি।

এদিকে ভারতীয় কৃষক সভা এইসব প্রতিবাদী কৃষক নেতাদের অভিনন্দন জানিয়েছেন। এই তিন আইন বাতিলের দাবিতে ২৬ এবং ২৭ নভেম্বর দিল্লিতে তিন আইন বাতিলের দাবিতে মিছিলের কর্মসূচি রয়েছে বিভিন্ন কৃষক সংগঠনের।

ইতিমধ্যেই পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার রেললাইন সড়ক পথ ইত্যাদি অবরোধ করে রীতিমতো প্রতিবাদ জানিয়েছে কৃষক সংগঠনগুলি। সেখান থেকে আওয়াজ উঠেছে, কৃষকদের জন্য কৃষি ব্যবস্থার বদলে মোদী এখন কর্পোরেট মালিকানা চাষের ব্যবস্থা করছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।