স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: জেলায় জেলায় চলছে গান্ধী জয়ন্তী পালন৷ মঙ্গলবার তমলুক নিমতৌড়ি স্মৃতি সৌধ প্রাঙ্গণে এবং মহিষাদল গান্ধী কুটিরে গান্ধীজীর ১৫০ বছর জন্ম দিবস উদযাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়৷ দু’টি জায়গাতেই রাজ্যের পরিবহণ ও পরিবেশ মন্ত্রী তথা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি শুভেন্দু অধিকারী উপস্থিত ছিলেন৷ পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন স্বাধীনতা সংগ্রামী রঞ্জিত বয়াল, রাষ্ট্রপতি পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্তরঞ্জন সামন্ত, প্রাক্তন বিধায়ক ব্রম্ভময় নন্দ সহ অন্যান্যরা৷

এদিন এই অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে মন্ত্রী শুভেন্দু বসু গান্ধীজীর চারটে বাণী তুলে ধরেন৷ তিনি বলেন, ‘‘গান্ধীজী চারটে কথা বলে গিয়ে ছিলেন৷ কুটির শিল্পের বিকাশের জন্য কুটির শিল্পীদের উৎসাহিত করা, হরিজনদের ঘৃণা করা যাবে না, ধর্মীয় একতা গড়ে তোলা এবং শেষ যে কথাটি তিনি বলেছিলেন সেটি হল যুব সমাজ যেন মদ্যপান থেকে বিরত থাকে৷ এই চারটির মধ্যে যদি একটির মান্যতা দেওয়া হয়, তাহলেই গান্ধীজীর ১৫০ বছরের জন্ম দিবস উদযাপন সার্থকতা লাভ করবে৷’’

আরও পড়ুন: গান্ধীজিকে শ্রদ্ধা জানাতে পাকিস্তানও গেয়ে উঠল ‘বৈষ্ণব জন তু’

পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘‘মহাত্মা গান্ধীকে নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই৷ সত্যাগ্রহ আন্দোলন, ভারত ছাড়ো আন্দোলনের পথিকৃৎ মহান এই নেতা৷ ১৯৪৭ সালের ১৫ অগাস্ট এঁনার জন্যই ভারত স্বাধীনতা পেয়েছে৷ আর স্বাধীনতার ৭৫ বছর পেরিয়ে আজ আমরা কেবল বিশেষ দিনটিতেই এই বিশেষ মনীষীদের স্মরণ করে থাকি৷ তবে তাঁর উল্লেখ করা চারটি বাণীর মধ্যে যদি একটি বাণীকেও মেনে নেওয়া যায় তাহলেই তাঁর জন্মবার্ষিকী সার্থকতা লাভ করবে৷’’

তিনি জানিয়েছেন, ‘‘রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মহাত্মা গান্ধীর নামে হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের জায়গায় একটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি করে দিয়েছেন৷ যেখানে জেলার সকল ছাত্রছাত্রীদের স্বাগত জানানো হয়েছে৷ এর থেকে বড় প্রাপ্তি আজকের দিনে আর হতে পারে না৷’