হাওড়া: সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় অসংগঠিত শ্রমিকদের অনুদান প্রদানের ক্ষেত্রে বিগত বাম সরকারের আমলের চেয়েও অনেক বেশি অনুদান মিলেছে বর্তমান রাজ্য সরকারের আমলে। শ্রমিকদের প্রকৃত বন্ধু এই সরকার। হাওড়ায় এক অনুষ্ঠানে এসে এমনই দাবি করলেন রাজ্যের শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটক।

মঙ্গলবার বিকেলে হাওড়ার শরৎ সদনের চিলড্রেন পার্কে আয়োজিত শ্রমিক মেলা ২০১৯ এর উদ্বোধন করতে আসেন শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটক৷ তিনি জানান, ভবিষ্যনিধি, স্বাস্থ্য সুরক্ষা, নির্মাণ কর্মী এবং পরিবহন কর্মীদের সুরক্ষা প্রকল্প থেকে শুরু করে বিড়ি শ্রমিকদের কল্যাণ প্রকল্পে অনেক সুযোগ সুবিধা মিলছে।

বিগত ২০০০ সাল থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত ১১ বছরে তৎকালীন বাম সরকারের আমলে সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় অনুদান মিলেছিল প্রায় ৯ কোটি টাকা। সেখানে ২০১১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই সাত বছরে এই প্রকল্পে অনুদান মিলেছে তেরশো কোটি টাকা। তাই শ্রমিকদের আসল বন্ধু এই রাজ্য সরকার। শুধুমাত্র হাওড়া জেলাতেই সামাজিক সুরক্ষা যোজনা প্রকল্পে ৫৬ কোটি ৪২ লক্ষ টাকা অনুদান মিলেছে।

এদিন হাওড়ার শ্রমিক মেলার মঞ্চ থেকে ১ হাজার ৩২৩ জনকে এক কোটি চৌত্রিশ লক্ষ টাকা অনুদান তুলে দেওয়া হয়। এদিন শ্রম মন্ত্রী কেন্দ্রের সাড়ে চার বছরের বিজেপি সরকারের কড়া সমালোচনা করেন। তিনি জানান, কেন্দ্রীয় সরকার ক্ষমতায় আসার আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কালো টাকা বিদেশ থেকে দেশে ফেরানো হবে৷ এবং প্রত্যেক মানুষের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে।

কিন্তু বাস্তবে আজ অবধি ১৫ টাকাও কারোর অ্যাকাউন্টে আসেনি। কেন্দ্রীয় সরকার মানুষকে ধোঁকা দিয়েছে। এছাড়া তারা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল দু’কোটি বেকারকে চাকরি দেওয়া হবে। সেটাও মিথ্যা প্রতিশ্রুতি। কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থায় কেউ চাকরি পায়নি। হিন্দুস্তান কেবলস, বার্ন স্ট্যান্ডার্ড থেকে শুরু করে বিভিন্ন শিল্প ইন্ডাস্ট্রিতে তারা তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। আজকে রাজ্য সরকার সাধারণ মানুষের পাশে রয়েছে। সাধারণ মানুষের কথা ভেবে মুখ্যমন্ত্রী ৪৭টি প্রকল্প তৈরি করেছেন। কৃষক-শ্রমিক সকলের কথা চিন্তা করেন মুখ্যমন্ত্রী। বাংলার নব রূপকার হলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এদিন শ্রম দফতরের উদ্যোগে সকল শ্রেণীর অসংগঠিত শ্রমিকদের অভিন্ন সামাজিক সুরক্ষা বলয়ে অন্তর্ভুক্ত করার লক্ষ্যে হাওড়া শ্রমিক মেলার আয়োজন করা হয়। যেখানে সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ভবিষ্যনিধি, মৃত্যু এবং দুর্ঘটনা সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের অনুদান দেওয়া হয়। সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় অসংগঠিত শিল্প ও সংযুক্তি পেশায় কর্মরত শ্রমিকদের জন্য আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়।

এদিনের অনুষ্ঠানে শ্রম মন্ত্রীর ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের সমবায় মন্ত্রী অরূপ রায়, রাজ্যের অনগ্রসর শ্রেণী কল্যাণ মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যের শ্রমদফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী ডাঃ নির্মল মাজি, হাওড়ার জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী, হাওড়ার জেলা পরিষদের সভাধিপতি কাবেরি দাস, সহ সভাধিপতি অজয় ভট্টাচার্য প্রমুখ।