স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী ও নুসরত জাহানকে লোকসভা নির্বাচনে যাদবপুর ও বসিরহাট থেকে প্রার্থী করে চমক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

কিন্তু রাজনীতির বাইরে একেবারে আনকোরা এই দুই অভিনেত্রীকে সরাসরি লোকসভা ভোটের প্রার্থী করায সোশ্যাল মিডিয়াতে ট্রোলড হন শুরু হয়েছে মিমি ও নুসরত-কে নিয়ে৷ সেই পালে হাওয়া লাগিয়েছে রাজনীতিতে অনভিজ্ঞ মিমির কিছু মন্তব্যও৷

সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী ঘোষণা হওয়ার পর এক বাংলা দৈনিক-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মিমি বলেন, ‘‘রাজনীতির আঙিনায় আমি একেবারে নতুন৷ সবকিছু ঠিকঠাক জানিনা৷ এখন শিখছি৷ আমাকে সাহায্য করার জন্য অনেককে সঙ্গে দিয়েছেন দিদি৷ অরূপ দা, শুভাশিষ দা আছে৷ খুব হেল্প করছে এবার শুধু মাঠে নামার অপেক্ষা৷ নুসরত তো সব ডায়রিতে লিখে রাখছে৷ জিজ্ঞেস করলে বলে, চিন্তা করিস না সব বুঝিয়ে দেবো৷’’ মিমির বক্তব্যের এই শেষ অংশটুকু নিয়েই ট্রোল শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে৷

একাধিক ফেসবুক ব্যবহারকারী মিমির এই বক্তব্যকে উদ্ধৃত করে লিখেছেন৷ ‘‘ সব ডায়রিতে লিখে রাখছে ওরা৷ এসব দেখে মনে হচ্ছে লোকসভা ভোটের লড়াই নয় উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছেন মিমি এবং নুসরত৷’’ এছাড়াও অভিনেতা দেব-কে নিজের রাজনৈতিক বলা নিয়েও এক প্রস্থ ট্রোলড হয়েছেন মিমি৷ সোশ্যাল মিডিয়াতে মিমি ও নুসরত-কে নিয়ে শুরু হওয়া এই ট্রোল ট্রেন্ডের বিরোধিতা করেছেন বিরোধী দলের অনেক নেতারাও৷ বিজেপির আসানশোলের সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়ও মিমিদের নিয়ে হওয়া সোশ্যাল মিডিয়া ট্রোলের সমালোচনা করেছেন৷