কলকাতা: ধাক্কা লাগতে চলেছে মধ্যবিত্তের পকেটে। বাজারে ফের দাম বাড়ছে দুধের। একধাক্কায় ১০ থেকে ২০ শতাংশ বাড়তে চলেছে দুধের দাম। যার জেরে মাথায় হাত পড়েছে সাধারণ মানুষের।

গত ডিসেম্বরেই ডবল টোনড দুধ বিক্রি হয়েছিল ৪০-৪৩ টাকা লিটার হিসেবে। সে সময় কলকাতা ও সংলগ্ন এলাকায় ৫-৬ টাকা বেড়েছিল। পূর্ব ভারত, বিশেষত পশ্চিমবঙ্গ দুধের জন্যই মূলত স্কিমড দুধ পাউডারের ওপর নির্ভরশীল। উল্লেখ্য ব্যাপার হল শেষ তিনমাসে এই স্কিমড পাউডারের দাম বেড়েছে প্রায় ১০০%।

ভারতে যেসব কোম্পানি দুধের জোগান দেয় তাঁদের মধ্যে আমূল অন্যতম। সেই আমূলও বাড়িয়েছে দুধের দাম। লিটার প্রতি ২ টাকা করে দাম বাড়িয়েছে আমূল। উৎপাদনকারী রাজ্য গুজরাতের আহমেদাবাদে ৫০০ এমএলের আমুল গোল্ডের দাম বাড়িয়ে করা হয়েছে ২৮ টাকা। আমুল তাজা ৫০০ এমএলের দাম বেড়ে হয়েছে ২২ টাকা। তবে দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে আমুল শক্তির দাম।

আমূল জানিয়েছে, নিরুপায় হয়েই তাঁরা এই দাম বাড়িয়েছে। পশুখাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার ফলেই এই দাম বাড়ানো হয়েছে বলে জানিয়েছে আমূল কর্তৃপক্ষ। আমূল ২ টাকা লিটার প্রতি দাম বাড়ালেও দিল্লি-নয়ডা সহ এনসিআর অঞ্চলে দুধের দাম লিটার প্রতি ৩ টাকা করে বাড়িয়েছে মাদার ডেয়ারি। এমনিতেই দ্রব্যমূল্য যখন আকাশ ছোঁয়া, তখন দুধের দামের এই অত্যাধিক বৃদ্ধির ফলে চোখে অন্ধকার দেখছেন সাধারণ মানুষ।

অন্যদিকে সম্প্রতিই সামনে এসেছে, কলকাতা এবং শহরতলীতে সম্প্রতি মাদার ডেয়ারির দুধ সরবরাহে সংকট দেখা দিয়েছে ৷ বর্তমান পরিস্থিতিতে আমুলের সঙ্গে পাল্লা দিতে গিয়ে রীতিমতো বেকায়দায় পড়েছে মাদার ডেয়ারি। রাজ্যের গোচাষিরা যে দুধ উৎপাদন করছে,এখন তার সিংহভাগটাই ভিন রাজ্যে চলে যাচ্ছে ৷

সূত্রের খবর গো চাষিদের লিটার প্রতি ৩২ টাকা দামে দুধ কিনে নিচ্ছে এখন আমুল। যেখানে রাজ্য সরকার গো চাষিদের দেয় লিটার প্রতি ২৭টাকা৬০ পয়সা ৷ এরফলে পরিস্থিতিতে কম দামে মাদার ডেয়ারিকে অনেকেই দুধ বিক্রি করতে চাইছেন না। এরই জেরে, মাদার ডেয়ারির দুধের সরবরাহ ব্যাহত হয়েছে।

এই পরিস্থিতিতে সংকটে পড়েছে মাদার ডেয়ারি দুধ বিক্রেতা থেকে সাধারণ ক্রেতা। কারণ আমুলের দুধের দাম বেশি হওয়ার কারণে অনেকেই মাদায় ডেয়ারির দুধের উপরেই ভরসা করেন। সমস্যার কথা জানিয়ে বিক্রেতাদের পক্ষ থেকে রাজ্য সরকারের কাছে আবেদন করা হয়েছে, যাতে রাজ্য সরকার কিছুটা বেশি দাম দিয়েই দুধ কেনে৷

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV