ওয়াশিংটন: নিরাপত্তার কারণে ভারত সরকারের তরফে ব্যান করা হয়েছে টিকটক-সহ ৫৮টি চিনা অ্যাপ। আর যার জেরে যথেষ্ট ক্ষতির মুখে পরেছে চিনা সংস্থাগুলি। এছাড়াও ভারতের সঙ্গে চিনা সংস্থার সঙ্গে যাতে কোন ব্যবসায়িক সম্পর্ক না-হয় তা নিয়েও বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এমনকি বেশ কিছু চিনা সংস্থার সঙ্গে করা চুক্তিও বাতিল করা হয়েছে। আর এবারে ভারতের দেখানো পথ ধরে হাটতে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। জানা গিয়েছে, সে দেশেও ব্যান হতে চলেছে একধিক চিনা অ্যাপ।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেক্রেটারি মাইক পম্পেও জানিয়েছেন তাদের তরফেও চিনা অ্যাপ এবং টিকটক ব্যান করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হচ্ছে। যার ফলে ফের সমস্যার মুখে চিন। সাংবাদিকদের সামনে জানিয়েছেন এই বিষয় নিয়ে যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে ভাবা হচ্ছে। ইতিমধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক বিশেষজ্ঞ নিরাপত্তা জনিত কারণ এই নিয়ে সকল চিনা অ্যাপের বিরুদ্ধে বারবার প্রশ্ন তুলেছেন। আর এবারে সেই বিষয়গুলি গুরুত্ব দিয়ে ভাবা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

এমনকি দ্রুত এই নিয়ে সিদ্ধান্ত জানানো হবে বলেও জানানো হয়েছে। ইতিমধ্যেই ভারত সরকারের তরফে ব্যান হওয়ার পরেই একাধিক চিনা অ্যাপ এমনকি টিকটক কার্যত দূরত্ব বজায় রাখতে শুরু করেছে বেজিং য়ের থেকে। ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাস নিয়ে কার্যত আমেরিকা এবং চিনের মধ্যে চলছে এক ঠাণ্ডা যুদ্ধ। সেখানে দাঁড়িয়ে আমেরিকার তরফে এই পদক্ষেপে ফের যথেষ্ট পিছিয়ে যাবে চিন। এমনটা মনে করা হচ্ছে।

তবে টিকটকের তরফে বারবার জানানো হয়েছে তারা কখনই কোনও ডেটা কাউকে ব্যবহার করতে দেয়নি। এমনকি চিনকেও নয়। মনে করা হচ্ছে নিজেদের তিকিয়ে রাখার জন্য কোন পদক্ষেপ নিতে পারে টিকটক। কিন্তু কার্যত আন্তর্জাতিক স্তর থেকে এভাবে ব্যান হওয়ার পরে কী পদক্ষেপ নেয় সে দিকেই খেয়াল রেখেছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে তারা জানিয়েছেন কয়েক দিনের মধ্যে তারা হংকং বাজার থেকে বেরিয়ে আসবেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ