হাওড়া: শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনে আসা পরিযায়ীরা প্রশাসনের অব্যবস্থা নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়লেন। শনিবার সকালে হাওড়ায় ট্রেন থেকে নেমে স্টেশনের বাইরে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। জানা যায়, ওই ট্রেনে এদিন হাওড়ায় আসেন হাজারেরও বেশি যাত্রী।

এরা মহারাষ্ট্র, মুম্বই, গোয়া-সহ বিভিন্ন এলাকায় কাজ করতেন। এই পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে এদিন ভোরে হাওড়ায় আসে বিশেষ ট্রেন। অভিযোগ, গোয়া থেকে সকালে ওই ট্রেন হাওড়ায় ঢুকলেও খাবার, পানীয় জল কিছুই দেওয়া হয়নি। তা নিয়ে ক্ষোভে ফুঁসতে থাকেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। এমনকী এদের জন্য প্রথমে কম সংখ্যক বাসের বন্দোবস্ত করা হয়েছিল বলেও অভিযোগ।

এই কম সংখ্যক বাসে কীভাবে বাড়ি ফিরবেন এই নিয়ে ভেবে পরিযায়ী শ্রমিকরা বিক্ষোভ দেখান হাওড়া স্টেশনের বাইরে। অবস্থা সামাল দিতে ছুটে আসে পুলিশ।

দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জ ডাঙ্গারহাটের বাসিন্দা আরাফাত সরকার বলেন, “ভোর পাঁচটা থেকে এসে বসে আছি। যাওয়ার ব্যবস্থা নেই। এখানে পুলিশ, গাড়ি সার্ভিস যারা করে তাঁদের বলেছি। ওরা বলল ব্যবস্থা করছি। আরও একজন এসে বলল আমরা পাঁচটা গাড়ি দিচ্ছি। অ্যাডজাস্ট করে রানাঘাট পর্যন্ত চলে যাওয়ার জন্য বলেন।’

ওই পরিযায়ী শ্রমিক আরও বলেন, ‘আমরা প্রায় হাজারেরও বেশি জন আছি। পাঁচটা গাড়ি দিয়ে কি হবে ? আমাদের দাবি যে করেই হোক হয় বাস না হয় ট্রেন দিক। আমরা সকাল পাঁচটা নাগাদ গোয়া থেকে এখানে এসেছি। কিন্তু এখানে খাওয়া-দাওয়ার কোনও ব্যবস্থা হয়নি। সকালে বিস্কুট এবং জল এক বোতল জল দিয়েছিল। সেই দিয়ে সারাদিন কাটিয়েছি। রাত দশটায় খাবার দেওয়া হয়েছে।’

উল্লেখ্য, এই পরিযায়ী শ্রমিকরা মুম্বই, গোয়া সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে এদিন সকালে হাওড়া আসেন। এদের বেশিরভাগই উত্তরবঙ্গের বাসিন্দা। পরে পুলিশ পরিবহন দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করে আরও বাসের ব্যবস্থা করে। এরপরই অবস্থা স্বাভাবিক হয়।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প