স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বলতে শুধুমাত্র চিকিৎসা ব্যবস্থা বা হাসপাতাল বোঝায় না। রোগ হলে রোগীর চিকিৎসার ব্যবস্থা করার চেয়ে রোগ আটকানো বেশি গুরুত্বপূর্ণ৷ এই ধারণাই ছড়িয়ে বিশেষ শিবিরের আয়োজন করল পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পরিষদ৷

প্রশাসনের মতে জনস্বাস্থ্য বলতে কোন একটি এলাকার সব শ্রেণীর জনগণের শারীরিক, মানসিক ও সামাজিক ভাবে সুস্থ থাকা বোঝায়। জনসাধারণকে সুস্থ রাখার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কি কি পরিষেবা দেওয়া হয় এবং সেগুলি কোথায় ও কীভাবে পাওয়া যায় সে সম্বন্ধেও সকলের জানা দরকার। এই ভাবনা থেকেই রাজ্যের বিশেষ কার্যক্রম- “জন উদ্যোগ জনস্বাস্থ্য”।

একদিনের জনস্বাস্থ্য বিষয়ক প্রশিক্ষণ শিবির হল রামনগরে। বুধবার জেলা জনস্বাস্থ্য শাখা ও পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পরিষদের উদ্যোগে ও রামনগর-১ পঞ্চায়েত সমিতির ব্যবস্থাপনায় ‘জন উদ্যোগ জনস্বাস্থ্য’ বিষয়ক শিবিরের আয়োজন করা হয়। এ দিন রামনগর-১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাকক্ষে ওই সচেতনতা শিবির হয়।

আরও পড়ুন : এপিডিআরের যুদ্ধবিরোধী মিছিল ঘিরে ধুন্ধুমার, হামলার অভিযোগ আরএসএসের বিরুদ্ধে

রামনগর-১ পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি নিতাই চরণ সার বলেন, “এলাকার মানুষ যাতে নিজের এলাকার জনস্বাস্থ্যের কাজের পরিকল্পনা, রুপায়ণ এবং নজরদারির দায়িত্ব ও ক্ষমতা নিজেদের মধ্যে ভাগ করে নিতে পারেন, তা সুনিশ্চিত করা এবং পঞ্চায়েতের নেতৃত্বে, বিভিন্ন পরিষেবা প্রদানকারী সরকারি দফতরগুলির কাজের সমন্বয় সাধনের ব্যবস্থা করে এলাকার জনস্বাস্থ্যের উন্নতিসাধন করাই হল এই কর্মসূচির প্রধান উদ্দেশ্য।

এদিন তিনি বলেন মূলত স্বাস্থ্যের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা এবং স্বাস্থ্যকর অভ্যাস গড়ে তোলা এবং জনস্বাস্থ্যকে এলাকার উন্নয়নের সূচক হিসাব প্রতিষ্ঠা করাই হল এই উদ্যোগের বিশেষ লক্ষ্য। তবে ভারতবর্ষের পঞ্চায়েতিরাজ ব্যবস্থার মাধ্যমে এই উদ্যোগ কেবলমাত্র পশ্চিমবঙ্গে শুরু করা হয়।”

ডিস্ট্রিক্ট প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর (স্বাস্থ্য) বিজয়া মণ্ডল বলেন, “সুস্থ থাকার জন্য জনস্বাস্থ্যের নানান দিক সম্বন্ধে এলাকার সমস্ত মানুষের মধ্যে স্বচ্ছধারণা থাকা অত্যন্ত জরুরী।তবে প্রশিক্ষণ শিবিরের জন্য সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা কিছুটা বাড়ছে। কিন্তু, এই সব প্রশিক্ষণ শিবিরের দ্বারা প্রাপ্ত জ্ঞানকে মনে রাখা এবং বাস্তব ক্ষেত্রে রুপায়ণ করা সহজ কাজ নয়। সেইসঙ্গে সাধারণ মানুষের মধ্যে সচেতনতা প্রসারের জন্য জনউদ্যোগ তৈরি করা এবং জনস্বাস্থ্যের নানা দিক মানুষের সামনে তুলে ধরা।”

আরও পড়ুন : তথাগত রায়ের পোস্ট হিংসা ছড়ানোর প্রয়াস: মুখ্যমন্ত্রী

তিনি আরও বলেন, “এলাকার জনসাধারণ জনস্বাস্থ্য সম্বন্ধে সচেতন হলে এবং জনস্বাস্থ্যর উন্নয়নের দায়িত্ব প্রধানত নিজেদের হাতে নিতে পারলে তবেই এই উদ্যোগ সফল হবে।” ছিলেন রামনগর-১ এর জয়েন্ট বিডিও মহীতোষ মহাপাত্র, ব্লকের জনস্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ সুশান্ত পাত্র, শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ কৌশিক বারিক, বিদ্যুৎ কর্মাধ্যক্ষ মদনমোহন গিরি, পঞ্চায়েত ডেভেলপমেন্ট অফিসার শৌভিক ঘোষ, ডিস্ট্রিক্ট রিসোর্স পার্সেন চণ্ডীচরণ দাস, অবন্তী জানা প্রমুখ।