নয়াদিল্লি: এবার নাগরিকত্ব আইন ইস্যুতে বিতর্ক উসকে দিলেন মাইক্রোসটের সিইও৷ নাগরিকত্ব আইন দেশের পক্ষে খারাপ বলেই মত মাইক্রোসফটের সিইও সত্য নাদেলার৷ সম্প্রতি নাগরিকত্ব আইন নিয়ে একটি বিতর্ক সভায় যোগ দিয়ে এমনই মন্তব্য করেছেন মাইক্রোসফট কর্তা৷

ম্যানহাটনে বুজফিডনিউজ ডটকমের উদ্যোগে আয়োজিত একটি আলোচনা সভায় যোগ দেন সত্য নাদেলা৷ সেখানেই ভারতের নাগরিকত্ব আইন নিয়ে একটি বিতর্কসবার আয়োজন করা হয়েছিল৷ সেই বিতর্কে যোগ দিয়েই নাগরিকত্ব আইন ইস্যুতে তাঁর মত প্রকাশ করেছেন মাইক্রোসফটের কর্তা৷ সাত্য নাদেলা আদতে হায়দরাবাদের বাসিন্দা৷ ২০১৪ সালে মাইক্রোসফটের সিইও পদে যোগ দেন তিনি৷

নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ওই বিতর্ক সভায় যোগ দিযে নাদেলা বলেন, ‘আমি মনে করি যা ঘটছে তা দুঃখজনক৷ একজন বাংলাদেশী উদ্বাস্তু ভারতে এসে ভারতে এসে নিজের কৃতিত্বে পরবর্তী সময়ে ইনফোসিসের সিইও হয়ে উঠবেন এটা দেখতেই আমি ভালোবাসি৷’ তিনি আরও বলেন, ‘জাতীয সুরক্ষার স্বার্থেই প্রতিটি দেশের সুষ্পষ্ট একটি সীমানা থাকা প্রয়োজন৷ সব দেশেরই উচিত সুষ্পষ্ট একটি অভিবাসন নীতি তৈরি করা৷’

বেশ কয়েক বছর ধরে আমেরিকাতে রয়েছেন মাইক্রোসফট সিইও৷ তিনিও ওই আলোচনা সভায় তাঁর আমেরিকায় থাকার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে একাধিক তথ্য জানিয়েছেন৷ সেই সম্পর্কে সত্য নাদেলা বলেন, ‘বিভিন্ন সংস্কৃতির দেশ ভারতে বেড়ে উঠেছি৷ উদ্বাস্তু হয়ে ভারতে এসে কেউ দেশের অর্থনীতিকে একটি বড় উচ্চতায় পৌঁছে দেবে, ভারতীয় সমাজকে নয়া দিশা দেবে, এটাই আমার আশা৷’

বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে ভারতে আসা হিন্দু, খ্রিস্টান, শিখ, পার্সি, জৈন এবং বৌদ্ধদের ভারতীয় নাগরিকত্ব দিতেই সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন তৈরি করেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ ইতিমধ্যেই এই আইন নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বিভাজনের রাজনীতির অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি৷ পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন তাঁদের রাজ্যে নাগরিকত্ব আইন কোনওভাবেই কার্যকর করা হবে না বলে সাফ জানিয়েছেন৷ একইভাবে কংগ্রেস শাসিত একাদিক রাজ্যও সিএএ নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে৷ মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমলনাথও একইভাবে কেন্দ্র বিরোধিতায় সরব হয়েছেন৷

দেশজুড়ে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিক্ষোভ চলছে৷ রাজনৈতিক দলগুলির পাশাপাশি ছাত্রছাত্রীদের একটি বড় অংশ নাগরিকত্ব আইন নিয়ে কেন্দ্র বিরোধিতায় সামিল৷ এই আবহে মাইক্রোসফট সিইও-র সিএএ নিয়ে এই অবস্থান বিজেপি বিরোধী দলগুলিকে প্রতিবাদের যে নয়া অস্ত্র তুলে দিল তা বলাই বাহুল্য৷

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ