ওয়াশিংটন: ‌ট্রাম্প বাইডেন বিতর্কের সময় যখন এক বক্তা বক্তব্য পেশ করবেন তখন অন্য বক্তার মাইক্রোফোন বন্ধ রেখে দেওয়া হবে। এবারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রথম বিতর্কের অভিজ্ঞতা‌ যা হয়েছে তার প্রেক্ষিতে চূড়ান্ত বিতর্কের নিয়ম পাল্টে দেওয়া হল।

বৃহস্পতিবার এই অনুষ্ঠানে ৯০ মিনিটের বিতর্কের ১২ মিনিট এক প্রার্থীর কথা বলতে দেওয়ার সময় অন্য প্রার্থীর মাইক্রোফোন বন্ধ করে রাখা হবে।

প্রথম বিতর্কে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা ও পাল্টা মন্তব্যের মাধ্যমে বক্তার বক্তব্য পেশে বাধা দিতে দেখা গিয়েছিল। তার পুনরাবৃত্তি যাতে না হয় তার জন্য বিতর্ক সংক্রান্ত কমিশন এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রথম দফার বিতর্কে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী জো বাইডেনের কথা বলার সময় ট্রাম্প ব্যাপক হইচই করেছেন যা মার্কিন নির্বাচনের ইতিহাসের জঘন্য অধ্যায় হিসেবে গণ্য করা হচ্ছে।

ট্রাম্পের সেদিনের বক্তব্যের পর অনেক মার্কিন নাগরিক বলেছেন, ইতিহাস থেকে যদি এই সময়টুকু মুছে দেওয়া যেত তাহলে খুশি হতাম! ট্রাম্প গোটা মার্কিন জাতিকে বিশ্বের সামনে অপমানকর অবস্থায় ফেলে দিয়েছেন বলেও কেউ কেউ মন্তব্য করেছেন।

চূড়ান্ত বিতর্ক ১৫ মিনিট করে ছয় অংশে ৯০ মিনিট ধরে অনুষ্ঠিত হবে। প্রত্যেক ১৫ মিনিটের প্রথম দুই মিনিট মোট ১২মিনিট এক প্রার্থীর কথা বলার সময় অন্য প্রার্থীর মাইক্রোফোন মিউট (নিঃশব্দ) করে দেওয়া হবে। এরপর অবশ্য উভয়ের মাইক্রোফোন চালু করে দেওয়া হবে। উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেবেন দুই প্রার্থী। চূড়ান্ত বিতর্কের সঞ্চালক হিসেবে থাকবেন এনবিসি নিউজের ক্রিস্টেন ওয়েলকার।

মাইক্রোফোন অন করে দেওয়া হলেও ওই সময় প্রার্থীরা তাদের বক্তব্যে পরস্পরের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করবেন বলে আশা প্রকাশ করেছে এই সংক্রান্ত কমিশন।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।