নয়াদিল্লি: দীর্ঘ বেশ কিছু বছর ভারতীয় স্মার্ট ফোনের বাজারে মাইক্রোম্যাক্স, লাভা সহ বেশ কিছু ভারতীয় কোম্পানি নিজেদের পরিষেবা দেওয়ার পরে চিনা ফোন কোম্পানির দাপটে কার্যত পিছু হটতে বাধ্য হয়েছিল। তবে সম্প্রতি চিন বিরোধী মনোভাবের কারণে ফের নতুন করে ভারতীর বাজারে আত্মপ্রকাশ করার মরিয়া চেষ্টা শুরু করেছে এই ধরনের একাধিক ভারতীয় মোবাইল কোম্পানি। আর সেই কারণে তাদের তরফে নেওয়া হয়েছে বেশ কিছু পদক্ষেপও।

জানা গিয়েছে আগামীর কথা ভেবে মাইক্রোম্যাক্স প্রায় ৫০০ কোটি টাকার কাছাকাছি বিনিয়োগের পরিকল্পনা করেছেন। সংস্থার তরফে জানা গিয়েছে ভারত সরকারের পিএলআই স্কিমের কারণে তারা ফের নতুন করে বাজারে ফেরত আসার সাহস দেখানোর পরিকল্পনা নিয়েছেন।

আগামী কিছুদিনের মধ্যে তাদের তরফে প্রায় ২০ টি নয়া ফোন লঞ্চ করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। সংস্থার আধিকারিকদের তরফে জানানো হয়েছে সরকারের এই পিএলআই স্কিম যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। জানানো হয়েছে ৪ থেকে ৬ শতাংশ তাদের ফোন যদি বাজারে বিক্রি হয় তাহলেও তারা দ্রুত নিজেদের জায়গা ফেরত নিতে পারবেন। পাশপাশি বাজারে অন্যদের কড়া প্রতিযোগিতার মধ্যে ফেলতে পারবে।

জানা গিয়েছে আগামীতে তারা বেশ কিছু ফোন আনতে চলেছে যেগুলির দাম ১৫ হাজারের মধ্যে থাকবে পাশপাশি ওই সকল ফোন গুলিতে থাকবে অত্যাধুনিক ফিচার। গ্রাহকদের কথা ভেবে এবং আগামীর বাজারে নিজেদের অস্তিত্ব প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে বাজারে ফেরার চেষ্টা চালাচ্ছে এই জাতীয় কোম্পানিগুলি। পাশাপাশি এও জানানো হয়েছে সমস্ত নিয়ম মেনেই পরিবেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই তারা আগামীতে বাজারে নিয়ে আসবে নিজেদের স্মার্ট ফোন।

আর এই চিন বিরোধী মনভাবের কারণে তাদের পক্ষে এই পদক্ষেপ নেওয়া সম্ভব হয়েছে বলেও জানিয়েছেন অনেকেই। মাইক্রোম্যাক্সের তরফে জানানো হয়েছে আগের জায়গা ফিরে পেতে তারা বদ্ধ পরিকর। আর সেই কারণেই তারা আপ্রাণ চেষ্টা করে চলেছেন। অর্থাৎ দেশীয় কোম্পানির কাছে কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত কার্যত আশীর্বাদ হয়ে দেখা দিয়েছে। ফের দেশের বাজারে নিজেদের ফিরিয়ে নিয়ে আসার পরিকল্পনা তারা শুরু করেছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।