আবুধাবি: প্রথম ম্যাচে চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে পাঁচ উইকেটে হেরে আইপিএল ২০২০ শুরু করল গতবারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বই ইন্ডিয়ান্স৷ ম্যাচ হারের পর মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ক্যাপ্টেন রোহিত শর্মার বক্তব্য, আমিরশাহীর পিচ ও পরিবেশের মানিয়ে তাদের আরও কিছুদিন সময় লাগবে৷

হারের কারণ হিসেবে এদিন তাঁদের ব্যাটিংকে দায়ী করার পাশাপাশি চেন্নাই সুপার কিংসের বোলিংয়ের প্রশংসা করেন রোহিত৷ আইপিএলের সর্বাধিক সফল অধিনায়ক শনিবার হারের পর বলেন, আইপিএলের মতো সিরিজে জয় দিয়ে শুরু করা গুরুত্বপূর্ণ৷ তবে দল আশা করে আজকের ভুল থেকে শিক্ষা নেবে এবং আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসবে।

গতবারের চ্যাম্পিয়ন মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ২০২০ আইপিএলের প্রথম ম্যাচে চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে পাঁচ উইকেটে হারে৷ এদিন আবুধাবির দর্শকশূন্য শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে প্রথম ব্যাটিং করে ৯ উইকেটে ১৬২ রান তুলেছিল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স৷ রান তাড়া করতে নেমে চার বল বাকি থাকতেই পাঁচ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ জিতে নেয় সুপার কিংস৷

ম্যাচে দর্শক না-থাকলেও বিসিসিআই কৃত্রিমভাবে প্রাক-রেকর্ডেড ফ্যান মঞ্চের ব্যবস্থা করেছিলেন৷ যার প্রশংসা করে রোহিত বলেন, আশা করা যায় শীঘ্রই দর্শকরা স্টেডিয়ামে ফিরে আসবে। তবে এদিন যে তারা ফ্যানেদের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি তা স্বীকার করেন নেন মুম্বই অধিনায়ক৷

রোহিত বলেন, ‘ডু প্লেসিস এবং রায়ডুর মতো তাদের ব্যাটসম্যানরা খেলতে পারেনি। এটি আমাদের ব্যর্থতা৷ তবে সিএসকে বোলারদের কৃতিত্ব, তারা আমাদের বড় রান করতে দেয়নি। এখান থেকে আমাদের শিখতে হবে৷ এই ম্যাচ থেকে আমাদের শিখার জন্য কয়েকটি জিনিস, আমরা ভুল করেছি৷ আশা করি আমরা সেগুলি সংশোধন করে আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরে আসতে পারব৷’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা পিচের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে পেয়েছি। পিচ পরের দিকে ভালো হয়েছে৷ এটি এমন নয় যে, আমরা বড় মাঠে খেলিনি। আমরা এই ফাঁকগুলি পেয়েছি৷ আমি নিশ্চিত, আমরা আমরা সিঙ্গলস এবং ডাবল রান নিতে পারতাম৷ কেবল বড় শট মারতে গিয়ে উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে আসার দরকার হয় না৷’

রোহিত শর্মা ও কুইন্টন ডি’কক দ্রুত আউট হওয়ার পর ২০ বলে ৩৩ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলে বিদায় নেন সূর্যকুমার যাদব৷ প্রত্যাবর্তন হিসেব সৌরভ তিওয়ারি রক্ষণশীল ব্যাটিং চ্যাম্পিয়নদের ১০০ এর কাছে নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি ভালো পার্টনারশিপের সূচনা করেছিলেন। মুম্বই যখন তাদের তিন-অঙ্কের স্কোরের চেয়ে 8 রান দূরে ছিল, তখন সূর্যকুমার বিদায় নেন। সৌরভ তিওয়ারি কিছুক্ষণ পরে আউট হয়৷ তারপর কাইয়ন পোলার্ড এবং হার্দিক পান্ডিয়া ভালো শুরু করার পরেও বড় রান করতে ব্যর্থ হন।

১৬৩ রান তাড়া করতে গিয়ে শুরুতেই দুই ওপেনার শেন ওয়াটসন এবং মুরলী বিজয়ের উইকেট হারালেও অম্বাতি রায়ডু ও ফ্যাফ ডু’প্লেসি ব্যাটে সহজ জয় ছিনিয়ে নেয় সুপার কিংস৷ ৪৮ রানের ম্যাচ জেতানো ৭১ রান করে ম্যাচের সেরা হন রায়ডু৷ এটি আইপিএলের তাঁর ১৯তম হাফ-সেঞ্চুরি৷ আর ৫৮ রান অপরাজিত থাকেন ডু’প্লেসি৷ তৃতীয় উইকেটে ১১৫ রানের পার্টনারশিপ গড়ে দলকে নিশ্চিত জয়ে পৌঁছে দিয়েছিলেন দু’জনে৷ রায়ডু আউট হলেও শেষ পর্যন্ত ক্রিজে থেকে দলকে জিতিয়ে মাঠে ছাড়েন ডু’প্লেসি৷ মুম্বইয়ের পরের ম্যাচে ২৩ তারিখ কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিরুদ্ধে৷

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।