নয়াদিল্লিঃ  জুলাই মাস থেকে খুলবে স্কুল। সম্প্রতি এমনই একটি নির্দেশ ছড়িয়ে পড়েছিল সর্বত্র। একাধিক সংবাদমাধ্যমেও খবর হয়। কিন্তু আজ বুধবার কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে সাফ জানিয়ে দিয়েছে যে, লকডাউনে বন্ধ স্কুল-কলেজ সহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে নতুন কোনও নির্দেশিকা প্রকাশ করো হয়নি। ভুয়ো খবর প্রচার করছে সংবাদ মাধ্যমের একাংশ। এই বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়ে এমনই অভিযোগ জানিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

প্রসঙ্গত যে খবর সব জায়গায় প্রকাশিত হয় তাতে বলা হয় যে, জুলাই মাসে স্কুল খোলার অনুমতি দিয়েছে কেন্দ্র। তবে উপস্থিতির হারে শিথিলতা থাকবে। অর্থাৎ ৩০ শতাংশ উপস্থিতিকেও গ্রাহ্য করতে হবে স্কুলগুলিকে। এছাড়াও জানানো হয় প্রথম শ্রেণী থেকে সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত পড়ুয়াদের স্কুলে আসতে হবে না। তবে অষ্টম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত পড়ুয়ারা স্কুলে আসতে পারবে।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, জোন ভিত্তিক স্কুলগুলি খোলা হবে। অর্থাৎ প্রথমে গ্রিন জোনের স্কুল খোলা হবে। তারপরে ধীরে ধীরে অরেঞ্জ ও সবশেষে রেড জোনের স্কুল খোলা হবে। রিপোর্ট জানাচ্ছে, প্রাথমিক শ্রেণীর পড়ুয়ারা লকডাউনের নিয়মকানুন মেনে চলতে পারবে না। তাই বাড়ি থেকেই পড়াশোনা চালাতে হবে তাদের। স্কুলগুলি পুরোপুরি খুলে গেলে পরবর্তী নির্দেশ পেয়ে তাদের স্কুলে পাঠাতে পারেন অভিভাবকরা।

শুধু তাই নয়, বিভিন্ন জাতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর জানায়, স্কুল খোলার জন্য নির্দিষ্ট কিছু নিয়মকানুন তৈরি করা হবে। এই সপ্তাহের শেষের দিকেই তা প্রকাশ করা হবে। এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন কেন্দ্রের শিক্ষামন্ত্রী। কিন্তু আজ হিন্দুস্তান টাইমসের প্রকাশিত খবর জানাচ্ছে, এই বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্তই নেওয়া হয়নি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে।

প্রসঙ্গত, গত ১৬ই মার্চ থেকে স্কুল বন্ধ রয়েছে গোটা দেশ জুড়ে।

প্রায় দু মাসের ওপর বন্ধ স্কুল কলেজ ও বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সব অভিভাবকদের মধ্যেই এই সংশয় কাজ করছে, যে কবে খুলবে স্কুল। এরই মধ্যে এই খবর সামনে আসায় নতুন করে তৈরি হয়েছিল আশা। বোধহয় সমস্ত স্বাভাবিক হচ্ছে। কিন্তু নতুন করে এই খবরে আশঙ্কার কালো মেঘ।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।