কোয়েটা: নিয়ম করে প্রার্থনা চলছিল৷ সেই সময় হল বিস্ফোরণ৷ মুহূর্তে চারিদিক ধোঁয়ায় অন্ধকার৷ জখমদের চিৎকারে ভারি হয়ে গেল চার্চ প্রাঙ্গন৷ ফের রক্তাক্ত পাক সংখ্যালঘুরা৷ বালোচিস্তানের রাজধানী কোয়েটা শহরের চার্চে জঙ্গি হামলায় এখনো পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা পাঁচ জন৷ আরও মৃত্যুর আশঙ্কা থাকছে৷

পাক সংবাদ মাধ্যম ‘এক্সপ্রেস ট্রিবিউন’ জানাচ্ছে, চার্চে ঢুকে এক জঙ্গি নিজেকে বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেয়৷ আরও জঙ্গির সঙ্গে গুলির লড়াই শুরু হয়েছে৷ ঘটনাস্থল ঘিরে রেখেছে রেঞ্জার্স ও পুলিশের বিশাল বাহিনী৷

সংবাদপত্র ‘ডন’ জানাচ্ছে, হামলায় অন্তত ১৭ জন গুরুতর জখম হয়েছেন৷ চার্চের ভিতরের পরিস্থিতি সঠিক জানা যায়নি৷ কোয়েটা শহরে ছড়িয়েছে প্রবল আতঙ্ক৷ চার্চের সামনে থেকে দর্শনার্থীদের সরিয়ে নিয়েছে পুলিশ৷ জঙ্গিদের খতম করতে সেনা নিয়েছে পজিশন৷

পাক সংবাদমাধ্যম ‘জিও টিভি’ জানাচ্ছে,  ঘটনাস্থল কোয়েটার জারঘুন রোডের মেথডিস্ট চার্চ৷ এখানেই প্রার্থনা চলাকালীন হামলা চালায় জঙ্গিরা৷   বালোচিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সরফরাজ বুগতি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছেন৷

২০১৩ সালে পেশোয়ারের চার্চে ভয়াবহ জঙ্গি হামলা হয়৷ সেই হামলায় ১২৭ জন পাক সংখ্যালঘু খ্রিষ্টানের মৃত্যু হয়৷ পরে ২০১৫ সালে লাহোরের একটি চার্চে নাশকতায় অন্তত ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল৷ সেই এবার বালোচিস্তানের মেথডিস্ট চার্চে হামলা হল৷

বালোচিস্তান ও তার রাজধানী শহর কোয়েটা প্রায়ই নাশকতার কেন্দ্রে পরিণত হয়৷ এখানকার স্থানীয় বিদ্রোহীদের সঙ্গে পাক সরকারের সংঘর্ষ চলছে৷