সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায় : পিছিয়ে থেকেই বাজেট পেশ করতে এসেছিলেন নির্মলা সীতারমন। একপ্রকার দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছিল তাঁর। তারপরেও আজ তিনি যে বাজেট পেশ করেছেন তাতে যথেষ্ট আশাবাদী বনিকমহল। কর্মসংস্থানও তৈরি হবে বলে মনে করছেন তাঁরা।

প্রত্যেক বছরের মতো এই বছরেও বাজেট নিয়ে চর্চায় বসেছিল শহরের বণিকমহল। বাজেট পেশ হওয়ার পর তারা জানালেন, এই বাজেটে অনেক পজেটিভ দিক রয়েছে। ফিরে আসার চেষ্টা করছেন নির্মলা। কর্মসংস্থানও তৈরী হওয়ার সম্ভাবনা যথেষ্ট। কীভাবে? বণিকরা জানাচ্ছেন, নতুন ট্যাক্স পদ্ধতিতে অনেক পরিবর্তন আনা হয়েছে। জিএসটি’র নিয়মে সরলীকরণ করা হয়েছে। স্টার্ট আপের ক্ষেত্রে আগে ২৫ কোটি টাকা থেকেই ট্যাক্স দিতে হত। এখন তা ১০০কোটি করা হয়েছে।

পাশাপাশি , ২০১৯ সেপ্টেম্বরে অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে চেষ্টা করেছিলেন নির্মলা। সেবার অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে চতুর্থ দফার দাওয়াই পেশ করেছিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। ঘরোয়া সংস্থাগুলির ক্ষেত্রে কর্পোরেট ট্যাক্সের পরিমাণ ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২২ শতাংশ এবং নতুন সংস্থার ক্ষেত্রে তা ২৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ করেন তিনি। মন্ত্রীর এই পদক্ষেপ দেশের উৎপাদন ক্ষেত্রে নতুন জোয়ার আনবে বলেই শিল্পমহলের ধারণা ছিল। এর ফলে, ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির পাশাপাশি শিল্প সংস্থাগুলির মুনাফার পরিমাণ বাড়বে বলে মনে করা হয়েছিল।

তার উপর গত বছরেই অক্টোবর মাসে, চিন-আমেরিকা বাণিজ্য যুদ্ধে বিদেশি সংস্থাগুলির কাছে বিকল্প হিসাবে ভারতের বাজারের গুরুত্ব ক্রমেই বাড়ছিল। তার উপর আজকের এই বাজেট আশা দেখিয়েছে বণিকমহলকে।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।