শিলং: নোভেল করোনাভাইরাসের মোকাবিলায় এবার এক বছরের জন্য বেতনের ১০ শতাংশ মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেঘালয়ের বিধায়করা। রাজ্যের শাসক-বিরোধী বিধায়কদের বেতনের ১০ শতাংশ দানের ঘোষণা করেছেন মেঘালয়ের বিধানসভার অধ্যক্ষ মেতবাহ লিংদোহ।

দেশজুড়ে ক্রমেই বাড়ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। মারণ ভাইরাসের মোকাবিলায় শাসক-বিরোধী একত্রিত হয়ে বৈঠকে বসে। বৈঠক করেন রাজ্যের উপ-মুখ্যমন্ত্রী প্রেসটোন টিনসং ও বিরোধী দলনেতা মুকুল সাংমা। ওই বৈঠকেই বিধায়কদের ১০ শতাংশ বেতন মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করা নিয়ে আলোচনা হয়। করোনাভাইরাসের মোকাবিলায় রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা আরও উন্নত করতে ওই টাকা খরচ করা হবে।

মেঘালয় বিধানসভার অধ্যক্ষ লিংদোহ জানান, রাজ্যের ৬০ জন বিধায়কই এক বছরের বেতনের ১০ শতাংশ মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করবেন। চলতি বছরের এপ্রিল থেকে আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত ওই বেতনের ১০ শতাংশ তাঁরা দান করবেন।

করোনা মোকাবিলায় রাজ্যের শাসক-বিরোধী দলগুলি এক হয়ে বেতন দানের সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে নয়া নজির গড়ল মেঘালয়। তিনি জানিয়েছেন রাজ্যের বিরোধীনেতা মুকুল সাংগমাও তাঁর এক বছরের ১০ শতাংশ বেতন দান করবেন মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে।

দেশের প্রায় সব প্রান্তেই করোনা জোরালো থাবা বসালেও মেঘালয়ে এখনও সেভাবে হানা দেয়নি করোনা। এখনও পর্যন্ত রাজ্যের একজনের শরীরে মারণ ভাইরাসের হদিশ মিলেছে। তবে কোনও রকম ঝুঁকি নিতে নারাজ মেঘালয় সরকার। রাজ্যবাসীকে কেন্দ্রের নির্দেশ মতো লকডাউন মেনে চলার আবেদন জানাচ্ছে সরকার।

এদিকে দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। শুধু গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জনের। আক্রান্ত হয়েছেন ৮০০০-এরও বেশি।

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখনও পর্যন্ত করোনায় মোট মৃত্যু হয়েছে ২৭৩ জনের। মারণ ভাইরাসে এখনও পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮,৩৫৬ জন। শেষ ২৪ ঘন্টায় করোনার বলি ৩৪ জন। গত ২৪ ঘন্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯০৯।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।