ওয়াশিংটনঃ  চাঁদের মাটিতে প্রথম মানুষ পাঠিয়ে গোটা বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ১৯৬৯ সালের জুলাইয়ের সেই ঐতিহাসিক অভিযানের পর ১৯৭২ সালে সর্বশেষ চন্দ্রপৃষ্ঠে যন্ত্র পাঠিয়েছিল নাসা। যদিও এরপর কেটে গিয়েছে কয়েক বছর। প্রযুক্তির কল্যাণে ক্রমশ উন্নতি ঘটছে সর্বত্র।

মহাকাশ বিজ্ঞানেও এসেছে বিশাল পরিবর্তন। নাসার পাশাপাশি চাঁদের বুকে অভিযান চালিয়েছে রাশিয়া, জাপান, ইউরোপের একাধিক স্পেস এজেন্সি। চাঁদে বসতি তৈরি করার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে মানুষ। আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই চাঁদের মাটিতে যাতে বসতি তৈরি করা যায় সেজন্যে প্রতিনিয়ত পরীক্ষানিরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছেন মহাকাশ বিজ্ঞানীরা।

একদিকে যখন এই গবেষণায় মত্ত বিজ্ঞানীরা অন্যদিকে চাঁদের অন্য পীঠে মহাকাশ যান পাঠিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছে চিন। এরপর চন্দ্রপৃষ্ঠে বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতিসহ যান পাঠাতে উদ্যোগী হয়েছে আমেরিকাও। আর তা নিয়ে প্রতিনিয়ত পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে নাসা।

অন্যদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ২০২৪ সালে চাঁদে মানুষ পাঠানোর পরিকল্পনা করেছেন। মূলত এই লক্ষ্যমাত্রাকে সামনে নিয়ে এগোচ্ছে আমেরিকার একাধিক সরকারি-বেসরকারি সংস্থা। সম্প্রতি নাসার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ২০২০ ও ২০২১ সালে চন্দ্রপৃষ্ঠে যন্ত্রপাতি পাঠানোর পরিকল্পনা করেছে তারা। ২০২৪ সালে মানুষ পাঠাতে যান পাঠাতেই এই উদ্যোগ। যন্ত্রপাতি নির্মাণ ও পাঠাতে অ্যাস্ট্রোবোটিক, ইনটিউটিভ মেশিনস ও অরবিট বেয়ন্ড নামে তিনটি বেসরকারি সংস্থাকে নির্বাচিত করা হয়েছে।