স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া অবর বিদ্যালয় পরিদর্শকের অফিসের পেছন থেকে উদ্ধার হল প্রায় পাঁচ বস্তা আয়রন, ফলিক অ্যাসিডের ট্যাবলেট ও ক্যাপসুল৷

মঙ্গলবার রাতে এস আই অফিসের এক অস্থায়ী কর্মী ওই অফিসের পেছনে বস্তায় ভর্তি করে ওষুধগুলি পুঁতে ফেলার চেষ্টা করছিল বলে অভিযোগ৷

আরও পড়ুন: কলেজে ভরতির দাবিতে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ

স্থানীয়দের দাবি, ঠিক তখনই বিষয়টি তাঁদের নজরে আসে৷ ওই কর্মী জানান, এস আই রমজান আলি ও অফিসের কর্মী রণবীর সরকারের নির্দেশে ওষুধগুলি নষ্ট করা হচ্ছিল। প্রাথমিক অনুমান, ওষুধগুলি বিভিন্ন স্কুলে রক্তাল্পতা ঠেকাতে ছাত্রছাত্রীদের দেওয়ার জন্য বরাদ্দ হয়েছিল।

কিন্তু স্কুলে না পাঠিয়ে অফিসেই রেখে দেওয়া হয়েছিল সেগুলি। জুন মাসেই সেগুলির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়৷ তাই সেগুলিকে মাটিতে পুঁতে দেওয়া হচ্ছিল৷

আরও পড়ুন: খালেদা জিয়ার ব্রিটিশ আইনজীবীর ভারতে প্রবেশ নিষেধ

ঘটনা জানাজানি হতেই রাতেই ঘটনাস্থলে আসেন স্থানীয় বিডিও-সহ অন্যান্য আধিকারিকেরা। অবর বিদ্যালয় পরিদর্শক রমজান আলিও ঘটনাস্থলে আসেন।

যদিও তিনি সংবাদ মাধ্যমকে কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি। এত পরিমানে ওষুধ কীভাবে একসঙ্গে মেয়াদ উত্তীর্ণ হল, তার কারন জানতে চেয়ে অবর বিদ্যালয় পরিদর্শক রমজান আলিকে শোকজ করেছেন বিডিও। অভিযুক্ত এস আই ও অফিসের অন্যান্য কর্মীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা ।

আরও পড়ুন: অমিতাভ-অভিষেকের ওয়ার্ল্ড কাপ নেশা