কলকাতা: লকডাউন ও করোনা আবহে ৮ মাসেরও বেশি সময় ধরে রাজ্যের মেডিক্যাল কলেজগুলোতে বন্ধ রয়েছে পঠনপাঠন৷ আগামী ডিসেম্বরে ফের তা শুরু হচ্ছে৷ জানাল, ন্যাশনাল মেডিক্যাল কমিশন৷

আট মাসেরও বেশি সময় ধরে মেডিক্যাল কলেজগুলোতে পড়াশুনা বন্ধ থাকায় চূড়ান্ত সমস্যায় পড়েছেন অসংখ্য হবু চিকিৎসক। অবশেষে ডিসেম্বরে ফের ক্লাস শুরু হওয়ার খবরে অনেকটাই খুশী ছাত্রছাত্রীরা৷

এই বিষয়ে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের বিশেষ সচিব জানান, আগামী পয়লা ডিসেম্বর থেকে রাজ্যের সমস্ত মেডিক্যাল কলেজ খুলছে৷ তবে করোনা বিধি মেনেই ক্লাস শুরু হবে৷ সব ক্লাস রুম স্যানিটাইজ বা জীবাণু মুক্ত করা হবে৷ তারপরই পঠনপাঠন শুরু হবে৷

এদিকে পড়ুয়া ভর্তির অনুমোদন পেল পুরুলিয়া সরকারি মেডিক্যাল কলেজ। কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, ন্যাশন্যাল মেডিক্যাল কমিশনের আওতাধীন ‘মেডিক্যাল অ্যাসেসমেন্ট অ্যান্ড রেটিং বোর্ড’-এর অনুমোদনপত্র কলেজে এসে পৌঁছেছে।

কলেজের অধ্যক্ষ পীতবরণ চক্রবর্তী বলেন, ‘চলতি শিক্ষাবর্ষ (২০২০-২১) থেকে পড়ুয়ারা পুরুলিয়া সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে পারবেন। ১০০টি আসনের অনুমোদন মিলেছে৷’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।