স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর সঙ্গে সাক্ষাতের পর তাঁর যে অশক্ত শরীরের ছবি রাজ্যপাল টুইট করেছেন তার কড়া নিন্দা করলেন সিপিএম নেতা মহম্মদ সেলিম। রাজ‍্যের সাংবিধানিক প্রধান এমন কাজ করতে পারেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য। কিন্তু তিনি নিজে কখনও চাননি তাঁর অসুস্থ অবস্থার ছবি প্রচার হোক। এরই মাঝে অষ্টমীর রাতে বুদ্ধবাবুর বাড়ির বেশ কিছু ছবি টুইট করেন রাজ্যপাল। যেখানে দেখা গিয়েছে সস্ত্রীক ধনকড় বসে রয়েছেন আর বিছানায় শুয়ে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। মুহূর্তে ছড়িয়ে পড়ে সেই ছবি। সেখানে বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের অসুস্থ অবস্থায় শুয়ে থাকার ছবি দেখে কষ্ট পেয়েছেন সিপিএম নেতা-কর্মীরা। প্রচারবিমুখ বুদ্ধবাবুর ছবি এভাবে প্রকাশ্যে আনা উচিত হয়নি বলে জানিয়েছেন মহম্মদ সেলিম।

উল্লেখ্য, শনিবার সন্ধ্যায় বুদ্ধবাবুর পাম অ্যাভিনিউর বাসভবনে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে যান রাজ্যপাল। সন্ধে ৬টা নাগাদ সেখানে পৌঁছন তিনি। তাঁকে স্বাগত জানান প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রী মীরা ভট্টাচার্য। প্রায় ৩০ মিনিট বুদ্ধবাবুর বাড়িতে ছিলেন তিনি। বেরিয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে বুদ্ধবাবুর ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি।

রাজ্যপাল বলেন, “বুদ্ধবাবু অত্যন্ত অভিজ্ঞ একজন রাজনীতিবিদ। তিনি পশ্চিমবঙ্গের একজন জীবন্ত সজ্জন ব্যক্তি। তাঁর সঙ্গে কথা বলে উদ্দীপ্ত ও অনুপ্রাণিত হই। তাঁর সঙ্গে আমার রাজ্যের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এর থেকে বেশি কিছু বলা ঠিক হবে না। ওঁর সুস্থতা কামনা করি।”

উল্লেখ্য, রাজ্যপালের পদে বসার পর জগদীপ ধনকড় একবার গিয়েছিলেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যর বাড়িতে। সেসময়ও বুদ্ধবাবু বেশ অসুস্থ ছিলেন। তাঁর শারীরিক অবস্থায় খোঁজখবর নিতেই রাজ্যপাল গিয়েছিলেন। তারপর অষ্টমীর সন্ধ্যায় ফের তিনি গেলেন দ্বিতীয়বারের জন্য।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।