লুধিয়ানা: ডার্বির আগে শুভর গোলে স্বস্তি বাগানে। পঞ্জাব এফসি-র বিরুদ্ধে ৮৮ মিনিট পর্যন্ত পিছিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত বঙ্গ সন্তানের গোলে মুখরক্ষা হল মোহনবাগানের। ১-১ গোলে ড্র করে মোহনবাগান।

মঙ্গলবার লুধিয়ানায় পঞ্জাব এফসি-র মুখোমুখি হয়েছিল মোহনবাগান। প্রতিকূল পরিস্থিতিতে ম্যাচের ২০ মিনিটেই পিছিয়ে পড়ে মোহনবাগান। তাও আবার বাগানের পুরনো ঘোড়া ডিপান্ডা ডিকার গোলে এগিয়ে যায় পঞ্জাবের ক্লাবটি। প্রথমার্ধে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকে মাঠ ছাড়ে পঞ্জাব এফসি-র ফুটবলাররা৷

সবুজ-মেরুনের প্রাক্তন তারকা দিপান্দা দিকার গোলে এগিয়ে গিয়েছিল পঞ্জাব৷ ৮৮ মিনিট পর্যন্ত এগিয়ে থেকেও অবশ্য শেষ মুহূর্তে গোল হজম করে তারা৷ পরিবর্ত হিসেবে মাঠে নেমে বাগান কোচ কিবু ভিকুনার মুখে হাসি ফোটান শুভ৷ পঞ্জাব এফসি-র বিদেশি ডিফেন্ডারের পা-থেকে ছোঁ মেরে বল নিয়ে নিখুঁত প্লেসে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়ে দেন শ্যামনগরের এই ছেলে৷ সেই সঙ্গে এক পয়েন্টের স্বস্তি নিয়ে পঞ্জাব থেকে ফিরছে সবুজ-মেরুন৷ ম্যাচ ড্র হওয়ায় ৭ ম্যাচ শেষে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে আই লিগের শীর্ষস্থান ধরে রাখল মোহনবাগান।

বাগান অবশ্য এদিন বেশ কয়েকটি সুযোগ নষ্ট করে৷ নতুন স্ট্রাইকার পাপা সহজ গোলের সুযোগ হাতছাড়া করে। ডেড বল স্পেশালিস্ট হোসেবা বেইতিয়ার ফ্রি-কি ধাক্কা খায় পঞ্জাবের ওয়ালে। কিন্তু তরুণ এই বঙ্গ সন্তান শেষ মুহূর্তে ঝলসে উঠে বাগানের মানরক্ষা করে। ভিন রাজ্যের মাটিতে গোল করে শুভ প্রমাণ করে দিলেন ঠিকঠাক সুযোগ পেলে বাঙালি ছেলেরাও নায়ক হয়ে উঠতে পারেন। ভারতের ফুটবলে এখন বিদেশিদেরই দাপাদাপি। বাঙালি ফুটবলারের সংখ্যা হাতেগোনা। শুভ ঘোষ তার ব্যতিক্রম। কলকাতা লিগ, আই লিগ-এ সুযোগের সদ্ব্যবহার করেছেন শ্যামনগরের এই ছেলে।

সোমবার রাতে প্রবল বৃষ্টি হওয়ায় মঙ্গলবার খেলা নিয়ে সংশয় ছিল৷ তবে বল গড়ালেও মাঠের অবস্থা ভালো ছিল না। বল নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন ছিল। এই অবস্থায় পিছিয়ে থেকেও ম্যাচ ড্র করে কিছুটা হলেও স্বস্তিতে বাগান৷ রবিবার ডার্বি ম্যাচ। তার আগে অ্যাওয়ে ম্যাচ থেকে এক পয়েন্ট নিয়ে কলকাতায় ফিরছে ভিকুনার দল৷