বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি: এবারের দুবরাজপুর উত্তরাঞ্চল ক্লাবের থিম আঁচল৷ এই বছর তাদের পুজো ৩৮ তম বর্ষে পদার্পণ করতে চলেছে৷ ২০১৮-তে তাদের পুজোর বাজেট ১১ লক্ষ টাকা৷

প্রসঙ্গত, আঁচল কথার অর্থ হল আচ্ছাদন বা আশ্রয়৷ ক্লাব সদস্যদের কথায়, ‘মায়ের আঁচলের তলায় সমগ্র বিশ্ববাসী নিরাপদ আশ্রয় রয়েছে৷ কিন্তু আজ অশান্তির বাতাবরণ গোটা পৃথিবী জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে৷ সেই অশান্তির হাত থেকে বাঁচতেই, বাঁচার নিরাপদ আশ্রয় হল আঁচল৷ তাই এরা এই থিমকেই বেছে নিয়েছে এই বছর৷

এই মণ্ডপে গেলে দেখা যাবে প্রতিমার দুই পাশ দিয়ে সুদীর্ঘ দুটি শাড়ির আঁচল বেয়ে গিয়েছে৷ অসুরকে এখানে দেখানো হয়েছে অসামাজিক কাজের সঙ্গে যুক্ত এক শ্রেণীর মানুষের মধ্যে দিয়ে৷ অসুরের সারা শরীরে দেখানো হয়েছে বারুদ, পিস্তল, বোমার প্রতিরূপ৷ প্রতি মুহূর্তে যে অঘটন ঘটছে সেইগুলো নিধন হওয়া দরকার৷ তাই এই সুস্থ পৃথিবীতে এই অসুর শ্রেণীর নিধন হওয়া দরকার৷

থিম শিল্পী রবিউল ইসলাম বলেন, ‘‘এই থিমের মাধ্যমে সকলকে আমার একটাই বার্তা দিয়েছি৷ অসামাজিক কাজকর্ম বাদ দিয়ে সুস্থ এবং স্বাভাবিক ভাবে মানুষ যাতে জীবনযাপন করে৷ আমার আশা ও বিশ্বাস এই বছর যথেষ্ট নজর কাড়বে আমাদের এই থিম৷’’

অন্যদিকে ক্লাব সদস্য বিশ্বজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘মূলত আমরা এই থিমের মাধ্যমে মানুষকে বোঝাতে চেয়েছি বিশ্ব মায়ের আঁচলের তলায় আমরা সবাই৷ আমাদের সকলের মায়ের কাছে আবেদন সকলের দোষ-ত্রুটিকে ভুলে, মানুষে মানুষে হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে গিয়ে সাধারণ ভাবে জীবন যাপন করা৷ আমরা আশা করছি আমাদের এই থিম প্রতিটা মানুষের মনে দাগ কেটে যাবে৷’’