মেরট: মায়াবতী যদি মুসলিম ভোট নিজের পকেটে পুরতে চান তাহলে যোগী আদিত্যনাথেরও লক্ষ্য মুসলিম সহ সব সম্প্রদায়ের ভোট বিজেপির দিকে টেনে আনা৷ সোমবার নিজের মন্তব্যে সেটাই স্পষ্ট করে দিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী৷

শত্রুতা ভুলে অখিলেশ যাদব ও মায়াবতী হাত মিলিয়েছেন৷ উত্তরপ্রদেশে এবার তাঁরা জোট বেঁধে লড়বেন৷ বিরোধী ভোট ভাগ হয়ে বিজেপি যাতে সুবিধা না পায় সেই জন্য কাছাকাছি এসেছে দুই দল৷ তার রেশ ধরে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ এদিন বলেন, ‘‘মায়াবতী বলেছেন মুসলিম ভোট তাঁর৷ তিনি বলেছেন, মুসলিমরা যেন তাঁকেই ভোট দেয়৷ কিন্তু মুসলিমরা ছাড়াও সব সম্প্রদায়ের মানুষ বিজেপিকে ভোট দেবে৷’’

সপা ও বসপার সঙ্গে কংগ্রেসকে আক্রমণ করেন আদিত্যনাথ৷ টেনে আনেন শহিদদের বলিদানের প্রসঙ্গ৷ জানান, কংগ্রেস, সপা ও বসপার অনুতপ্ত বোধ করা উচিত৷ তারা দেশের সেনাদের আত্মত্যাগ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে৷ তোপ দেগে বলেন, এই দলগুলিতে গুন্ডার সংখ্যা বেশি৷ সামনে গণতন্ত্রের কথা বলে আর পিছনে দুষ্কৃতীদের প্রশয় দেয়৷

যোগীর মতো, রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব মৌর্যও মায়াবতী তাঁর মন্তব্যের জন্য আক্রমণ করেন৷ বলেন, ‘‘মায়াবতীর মন্তব্যে পুরস্কার দলিতদের সে শুধু ভোট ব্যাংক হিসাবে দেখেছে৷ তাদের কোনও সম্মান দেয়নি৷ বিজেপি তাদের যোগ্য সম্মান দিয়েছে৷ এখন মায়াবতী মুসলিমদের বলছেন তাঁকে ভোট দেওয়ার জন্য৷ কিন্তু তারা সপা ও বসপার ছক বুঝে গিয়েছে৷’’

এদিন উত্তরপ্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী কেশব প্রসাদ মৌর্য ‘বুয়া-ভাতিজার’ জোট নিয়ে কটাক্ষ করেন৷ বলেন, ‘‘২৩ মে এই জোটের শেষ দিন৷ তারপরই মায়াবতী অখিলেশের সঙ্গ ত্যাগ করবেন৷’’ পুরানো একটি ঘটনার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘‘সপা কখনোও দলিতদের সম্মান দেয়নি৷ ১৯৯৫ সালে মুলায়মের নির্দেশে মায়াবতীর উপর আক্রমণ করা হয়েছিল তখন বিজেপি তাঁকে বাঁচিয়েছিল৷ এখন তাঁর ছেলে ২৩ মে’র পর মায়াবতীকে ছেড়ে চলে যাবে৷ তারপর সেই বিজেপি আসবে তাঁকে বাঁচাতে৷’’

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, কেশব মৌর্য সুচারুভাবে মায়াবতীর সঙ্গে জোটের রাস্তা খোলা রাখলেন৷ বুঝিয়ে দিলেন ভোটের পর মায়াবতীর সঙ্গে বিজেপির যেতে কোনও আপত্তি নেই৷ তাছাড়া অতীত রেকর্ড বলছে সঙ্গ ত্যাগ করা পুরানো অভ্যাস মায়াবতীর৷ ফলে সপার সঙ্গে কতদিন তিনি জোট বজায় রাখবেন সেই নিয়ে অনেকেরই সংশয় আছে৷