লখনউ:  মোদী বিরোধী মহাজোটের প্রথম জনসভা থেকে সংখ্যালঘু মুসলিম ভোটে টার্গেট দলিত নেত্রী মায়াবতীর৷ মুসলিম ভোট যেন কংগ্রেসে না পড়ে তাই স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দিয়েছেন বিএসপি নেত্রী৷ খোদ দেওবন্দের জনসভায় তিনি এই বার্তা দিয়েছেন৷ জমিউতে উলেমা এ হিন্দের গর্ভগৃহ হল উত্তর প্রদেশের সাহারানপুরের দেওবন্দ৷

লোকসভা নির্বাচনে রবিবার উত্তর প্রদেশের মাটিতে প্রথম মহাজোটের জনসভা ঘিরে একটা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, আদৌ কার বিরুদ্ধে বার্তা দিতে চাইছে এই জোট৷ একদিকে তাদের প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপি৷ অপর দিকে রায়বেরিলী ও আমেঠির মতো কেন্দ্রে কোনও প্রার্থী না দিয়েও কংগ্রেসের প্রতি বিন্দুমাত্র নরমভাব দেখাচ্ছেন না মায়াবতী৷ এদিন জোটের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন সমাজবাদী পার্টির সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব৷ তাঁর পিতা তথা প্রবীণ সপা নেতা মুলায়ম সিংয়ের কেন্দ্র মৈনপুরীতে কোনও প্রার্থী দেয়নি কংগ্রেস৷

এই সপা-বিএসপি মহাজোট, বিজেপি ও কংগ্রেসের ত্রিমুখী লড়াইয়ে সরগরম ৮০টি লোকসভা আসনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ রাজ্য উত্তর প্রদেশ৷ হিন্দি বলয়ের এই রাজ্য থেকেই গত লোকসভায় বিপুল জয় পেয়েছিল বিজেপি৷ সেখানেই গত কয়েকটি উপনির্বাচনে অ-বিজেপি জোটের কাছে বড়সড় ধাক্কা খেয়েছে বিজেপি৷ যদিও তাদেরই সরকার উত্তর প্রদেশে৷

এমনই পরিস্থিতিতে রবিবার একসঙ্গে সভা করল এসপি-বিএসপি-আরএলডি। সাহারানপুরের দেওবন্দে প্রথম জন সমাবেশ হল৷ এই সমাবেশে ছিলেন জোটের তিন শীর্ষ নেতা মায়াবতী-অখিলেশ যাদব ও চৌধুরী অজিত সিং৷ উপস্থিত ছিলেন ভীম সেনা সমর্থকরাও। সমাবেশের ভাষণে বিজেপিকে কটাক্ষ করেন বিএসপি নেত্রী মায়াবতী৷ পাশাপাশি মুসলিমদের লক্ষ্য করে তাঁর বার্তা কংগ্রেসের বদলে জোটকে ভোট দেওয়ার৷ কারণ, এই রাজ্যে দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় না থাকার কারণে প্রায় শক্তিহীন কংগ্রেসের অন্যতম সম্বল সংখ্যালঘু মুসলিম ভোট৷ সেই ভোটকেই টেনে আনতে চাইছেন মায়াবতী-অখিলেশ৷

উত্তর প্রদেশে সাত দফার নির্বাচন হবে৷ তার প্রথম দফার অনুষ্ঠিত হবে ১১ এপ্রিল। তাই প্রচারে ঝড় উঠছে৷ সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলিই দেওয়াল লিখন, র‍্যালি, সমাবেশ চলছে৷ রবিবার অ-বিজেপি মহাজোটের সাহারানপুরের জনসভা তাই গুরুত্বপূর্ণ। দেওবন্দে সমাবেশে গিয়ে সমাজবাদী পার্টি সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব বলেন, ” বিজেপি এবং কংগ্রেসের মধ্যে বিশেষ কোন পার্থক্য নেই। যদি আপনারা ওদের রাজনীতির দিকে লক্ষ্য করেন দেখবেন তাঁরা একই। এই মহাজোট করা হয়েছে দেশে পরিবর্তন আনতে। কিন্তু কংগ্রেস তা চায় না। তাঁরা উত্তর প্রদেশে সরকার গঠন করতে চায়। “