বিশাখাপত্তনম: অস্ট্রেলিয়া সফরে অভিষেক টেস্ট সিরিজেই মুরলী বিজয়ের বদলি হিসেবে নজর কেড়েছিলেন। আর চতুর্থ ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে বৃহস্পতিবার কেরিয়ারের অভিষেক শতরানকে ডাবল টনে কনভার্ট করলেন ময়াঙ্ক আগরওয়াল। বিশাখাপত্তনমে কেরিয়ারের পঞ্চম টেস্ট ম্যাচে মাঠে নেমে প্রথমে সতীর্থ ওপেনার রোহিত শর্মার সঙ্গে ৩১৭ রানের রেকর্ড পার্টনারশিপ এরপর কেরিয়ারের পয়লা নম্বর টেস্ট শতরানকে দ্বিশতরানে রূপান্তর করা। ৩৭১ বলে ময়াঙ্কের ২১৫ রানের ইনিংস সাজানো ছিল ২৩টি বাউন্ডারি ও ৬টি ওভার বাউন্ডারি দিয়ে।

দিনের শেষে কেরিয়ারের প্রথম দ্বিশতরানের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে উচ্ছ্বসিত ময়াঙ্ক। দক্ষিণী ব্যাটসম্যানের কথায়, ‘আমি দারুণ খুশি। এটা এমন একটা অনুভূতি যেটা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। ভালোলাগছে প্রথন শতরানকে দ্বি-শতরানের নিয়ে যেতে পেরে। নিজের খেলায় আমি সন্তুষ্ট। ওপেনে নেমে এভাবেই পরবর্তীতে ব্যাটিং করে যেতে চাই। এভাবে রোহিত এবং আমি দলকে সবসময় যদি ৪০০-৫০০ রানের পুঁজি জোগাড় করে দিতে পারি, তাহলে সেটা দলের পক্ষে দারুণ ব্যাপার হবে।’

তবে শুধু নিজেকে নিয়ে আশ্বস্ত থেকেই থামেননি। উলটোদিকে রোহিত শর্মার মত একজন যে তাঁর কাজটা সহজ করে দিয়েছিল, সেটা একপ্রকার নিশ্চিত। তাই নিজের ২১৫ রানের ইনিংসের পাশাপাশি রোহিতের ১৭৬ রানের ঝকঝকে ইনিংসকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিলেন ময়াঙ্ক। সতীর্থ ওপেনারের ইনিংস নিয়ে বলতে গিয়ে দক্ষিনী ওপেনারটি জানান, ‘টেস্টে ওপেনারের ভূমিকায় রোহিতের সাফল্য পাওয়া নিয়ে যারা সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন, এই ইনিংস তাদের সব সন্দেহ দূর করে দেবে। যেভাবে ও স্পিনারদের উপর আধিপত্য নিয়ে খেলল সেটা এককথায় অসাধারণ।’

রোহিত-ময়াঙ্কের রেকর্ড পার্টনারশিপকে প্ল্যাটফর্ম করেই প্রথম ইনিংসে ৫০২ রানের বিরাট বোঝা প্রোটিয়াদের উপর চাপিয়ে দিতে সফল হয় টিম ইন্ডিয়া। বল হাতে এরপর বিশাখাপত্তনমে জ্বলে ওঠেন জাদেজা-অশ্বিন জুটি। দ্বিতীয় দিন চা-পানের বিরতির পর থেকেই পিচে সুবিধে পেতে শুরু করেন স্পিনাররা। তাই দলের স্পিনিং জুটির প্রশংসা করে ময়াঙ্ক জানান, ‘পিচের চরিত্র এমন থাকলে ওদের ঝুলিতে আরও অনেক উইকেট আসবে।’

ভারতের ৫০২ রানের জবাবে দ্বিতীয় দিনের শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৩ উইকেট হারিয়ে ৩৯ রান। ২টি উইকেট নিয়েছেন রবি অশ্বিন, একটি উইকেট জাদেজার ঝুলিতে। ভারতের চেয়ে এখনও ৪৬৩ রানে পিছিয়ে প্রোটিয়ারা।