ইন্দোর: দুরন্ত ময়াঙ্ক আগরওয়াল৷ টেস্ট কেরিয়ারে টানা দু’টি সিরিজে ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকালেন টিম ইন্ডিয়ার এই ডানহাতি ওপেনার৷ ১৯৬ রানে দাঁড়িয়ে মেহেদি হাসানকে ছক্কা মেরে টেস্ট কেরিয়ারে দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ২৮ বছরের কর্নাটকী৷ বীরেন্দ্র সেহওয়াদের ঢংয়ে ৬ মেরে ডাবল সেঞ্চুরিতে পৌঁছন ময়াঙ্ক৷

গত মাসে বিশাখাপত্তনমে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে টেস্ট কেরিয়ারে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরির স্বাদ পেয়েছিলেন ময়াঙ্ক৷ আর শুক্রবার ইন্দোরে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিনে ফের ডাবল সেঞ্চুরি পেলেন ভারতীয় দলের এই ডানহাতি ওপেনার৷

সেই সঙ্গে ক্যাপ্টেনের কথা রাখলেন ময়াঙ্ক। ইন্দোর টেস্টের দ্বিতীয় দিনে লাঞ্চের ঠিক পরেই ব্যক্তিগত শতরান পূর্ণ করেন তিনি। ইনিংসের ৬০তম ওভারের পঞ্চম বলে এবাদত হোসেনকে ডিপ মিড-উইকেটে ফ্লিক করে দু’রান নেন আগরওয়াল এবং কেরিয়ারের তৃতীয় টেস্ট সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন।

চা-বিরতির কিছুক্ষণ আগে ইনিংসের ৭৭তম ওভারের তৃতীয় বলে তাইজুল ইসলামকে বাউন্ডারিতে পাঠিয়ে ময়াঙ্ক টপকে যান দেড়শো রানের গন্ডি। ব্যক্তিগত ১৫০ রানে পৌঁছনোর পর যখন ড্রেসিংরুমের দিকে ব্যাট উঁচিয়ে সতীর্থদের অভিবাদন গ্রহণ করছেন আগরওয়াল, ঠিক সেই সময়ে ক্যাপ্টেন কোহলি ড্রেসিংরুম থেকে দুটি আঙুল দেখিয়ে বিশেষ ইঙ্গিত করেন ময়াঙ্কের উদ্দেশ্যে। বিরাট স্পষ্ট বুঝিয়ে দেন যে, তিনি আগরওয়ালের কাছ থেকে ডাবল সেঞ্চুরি চাইছেন। ইঙ্গিতটা বুঝতে অসুবিধা হয়নি ময়াঙ্কের। তিনিও থামস-আপ সংকেতে ক্যাপ্টেনের এই বার্তার প্রাপ্তি স্বীকার করেন এবং মাথা নেড়ে আশ্বস্ত করেন দলনায়ককে।

দিনের শেষ সেশনে ইনিংসের ৯৯তম ওভারের পঞ্চম বলে মেহেদি হাসানকে স্টেপ-আউট করে ডিপ মিড-উইকেট দিয়ে গ্যালারিতে পাঠান ময়াঙ্ক। ২০০ রানে পৌঁছনোর পর স্বাভাবিকভাবেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করতে দেখা যায় তাঁকে। দু’হাত তুলে দর্শক তথা সতীর্থদের অভিবাদন গ্রহণের পর কোহলির দিকে দু’টি আঙুল দেখিয়ে আগরওয়াল ইঙ্গিত করেন, কথা রেখেছেন তিনি। সংস্থার সাধারণ কর্মী হিসেবে টিম লিডারের ঝুলিয়ে দেওয়া টার্গেটে পৌঁছনোর মতোই দেখাচ্ছিল ঘটনাটি।

তবে চমকপ্রদ ঘটনা হল, এতেও সন্তুষ্ট হননি ক্যাপ্টেন কোহলি। প্রাথমিকভাবে এমন দুরন্ত কৃতিত্বের জন্য আগরওয়ালকে অভিবাদন জানান বিরাট। পরক্ষণেই ডানহাতি ওপেনারের সামনে ঝুলিয়ে দেন নতুন লক্ষ্য। সেটা হল ট্রিপল সেঞ্চুরি। তিনটি আঙুল দেখিয়ে কোহলি আগরওয়ালকে বার্তা দেন ব্যক্তিগত ৩০০ রান করে তবেই মাঠ ছাড়তে। যদিও শেষমেশ সেটা আর সম্ভব হয়নি তার পক্ষে। ময়াঙ্ক আউট হন ২৪৩ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে। ৩৩০ বলের ইনিংসে ২৮টি চার ৪টি ছক্কা মারেন তিনি।

আগরওয়াল ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ৩০৩ বলে। দ্বিশতরানে পৌঁছতে ২৫টি চার ও ৫টি ছক্কার সাহায্য নেন তিনি। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে গত হোম সিরিজেই কেরিয়ারের প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরি করেন মায়ঙ্ক। বিশাখাপত্তনমে প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে ২১৫ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস খেলেন তিনি। পরে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে পুণে টেস্টে পুনরায় তিন অঙ্কে পৌঁছন আগরওয়াল। এবার হোলকার স্টেডিয়ামে খেলেন কেরিয়ারের সর্বোচ্চ রানে ব্যক্তিগত ইনিংস।