ইন্দোর: টস জিতে বাংলাদেশ অধিনায়ক মোমিনূল হক প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিলেও হতাশ হননি বিরাট কোহলি। ভারত অধিনায়ক স্পষ্ট জানালেন যে, এই পিচে টস জিতলে প্রথমে বোলিং করতেই চাইতেন তিনি। মূলত দু’টি কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিতেন বলে উল্লেখ করেন বিরাট। প্রথমত, পিচে পর্যাপ্ত ঘাস থাকায় প্রথম দিনে পেসাররা বাড়তি সুবিধা পাবে। তার থেকেও বড় কথা এই পিচে দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিনে ব্যাট করা অনেক সহজ হয়ে দাঁড়াবে।

কোহলি যে পিচের সম্ভাব্য চরিত্র বুঝতে ভুল করেননি, তা প্রমাণ করলেন ময়াঙ্ক আগারওয়াল ও অজিঙ্কা রাহানে। দ্বিতীয় দিনের চায়ের বিরতি পর্যন্ত সময়ে বাংলাদেশি বোলারদের উপর ছড়ি ঘোরান ভারতের দুই নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান। দলকে টেনে নিয়ে যান বড় রানের লক্ষ্যে।

আরও পড়ুন- কোহলি ব্যর্থ, লাঞ্চেই লিড নিল ভারত

চেতেশ্বর পূজারাকে সঙ্গে নিয়ে ইনিংসের ভিত গড়েছিলেন ময়াঙ্ক।এবার সহঅধিনায়ক রাহানেকে সঙ্গে নিয়ে সেই ভিতের উপর বড়সড় ইমারত গড়ার কাজটিও যথাযথ করেন আগরওয়াল। আপাতত দ্বিতীয় দিনের চায়ের বিরতিতে ভারত তাদের প্রথম ইনিংসে ৩ উইকেট হারিয়ে ৩০৩ রান তুলেছে। আগরওয়াল ইতিমধ্যে ব্যক্তিগত শতরান পূর্ণ করেছেন। তিনি ব্যাট করছেন ১৫৬ রানে। ২৫১ বলে ইনিংসে মায়ানক ২১টি চার ও ৩টি ছক্কা মেরেছেনময়াঙ্কের টেস্ট কেরিয়ারের এটি তৃতীয় সেঞ্চুরিতিনি ধীরে ধীরে এগিয়ে চলেছেন কেরিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরির দিকে

অজিঙ্কা দাঁড়িয়ে রয়েছেন ব্যক্তিগত শতরানের ঠিক দোরগোড়ায়। ৮টি বাউন্ডারির সাহায্যে ১৬৮ বলে ৮২ রান করে অপরাজিত রয়েছেন কোহলির ডেপুটি। প্রথম ইনিংসের নিরিখে ভারত এখনই বাংলাদেশের থেকে ১৫৩ রানে এগিয়ে রয়েছে।

প্রথম দিনে টাইগারদের প্রথম ইনিংস ১৫০ রানে গুটিয়ে দেয় ভারত। পালটা ব্যাট করতে নেমে প্রথম দিনের শেষে ১ উইকেটের বিনিময় ৮৬ রান তোলে টিম ইন্ডিয়া। রোহিত শর্মা ৬ রানে আউট হন ইনিংসের শুরুতেই। ময়াঙ্ক আগরওয়াল ৩৭ ও চেতেশ্বর পূজারা ব্যক্তিগত ৪৩ রানে অপরাজিত ছিলেন। তার পর থেকে খেলতে নেমে দ্বিতীয় দিনের প্রথম সেশনে একজোড়া উইকেট হারালেও সহ-অধিনায়ক অজিঙ্কা রাহানেকে সঙ্গে নিয়ে ময়াঙ্ক ভারতকে ম্যাচে চালকের আসনে বসিয়ে দেন।

দিনের শুরুতে চেতেশ্বর পূজারা আবু জায়েদের বলে পরিবর্তে ফিল্ডার সঈফ হাসানের হাতে ধরা পড়েন। তবে তার আগে ব্যক্তিগত অর্ধশতরান পূর্ণ করেন পূজারা। ৯টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৭২ বলে ৫৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন চেতেশ্বর। পরের ওভারে বল করতে এসে সেই আবু জায়েদই তুলে নেন বিরাট কোহলির মূল্যবান উইকেট। মাত্র ২ বল ক্রিজে কাটিয়ে খাতা খুলতে পারেননি ভারত অধিনায়ক। কোহলি এলবিডব্লিউ হয়ে প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটা লাগান। উল্লেখ্য, প্রথম দিনে রোহিত শর্মাকেও ফেরত পাঠিয়ে ছিলেন আবু জায়েদ। অর্থাৎ টিম ইন্ডিয়ার টপ অর্ডারের প্রথম তিন জন ব্যাটসম্যানের ফেরত পাঠান ২৬ বছর বয়সি নবাগত এই বাংলাদেশি পেসার।

দ্বিতীয় দিনের মধ্যাহ্নভোজের বিরতিতে ৩ উইকেটের বিনিময় ১৮৮ রান তুলেছিল। লাঞ্চের পর থেকে চায়ের বিরতি পর্যন্ত দিনের দ্বিতীয় সেশনে ৩০ ওভার ব্যাট করে ভারত নতুন করে কোনও উইকেট না হারিয়ে আরও ১১৫ রান যোগ করে।