প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুরঃ  গত কয়েকদিন ধরেই তৈরি হয়েছিল জল্পনা! অবশেষে সেই জল্পনা সত্যি করেই বিজেপিতে যোগ দিলেন তৃণমূল বিধায়ক অর্জুন সিং। অর্জুনের বিজেপি যোগের পরেই রাজনৈতিক জল্পনা যে কোনও সময়ে নাকি বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন সুনীল সিং। অর্জুন এবং সুনীল দুজনে শালা-ভগ্নিপতি। কার্যত অর্জুন সিংয়ের সৌজন্যে রাজনীতিতে উত্থান সুনীল সিংয়ের।

এমনকি গত বিধানসভা উপনির্বাচনে অর্জুনের জন্যেই টিকিট পেয়েছিলেন সুনীল। স্বভাবতই অর্জুনের বিজেপি যোগের পরেই রাজনৈতিক মহলে জোর জল্পনা তৈরি হয় যে কোনও মুহূর্তে দলবদল করতে পারেন ভগ্নিপতিও।

যদিও এই প্রসঙ্গে kolkata24x7-কে নোয়াপাড়ার এই বিধায়ক জানান, ‘‘এই বিষয়ে আমি কিছুই বলতে চাই না৷ আমি তৃণমূলের সঙ্গেই আছি৷ আপাতত কোনও দল পরিবর্তন যে করছেন না তা সাফ জানিয়ে দিয়েছেন সুনীল সিং। পাশাপাশি অর্জুন সিংয়ের বিজেপির যোগের বিষয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে সুনীল সিং বলেন, কে কোন দলে গেল তাতে আমার কিছু যায় আসে না৷’’ এমনকি দলেরও যে কোনও কিছু যায় আসে না সেটাও স্পষ্ট করেছেন গাড়ুলিয়া পুরসভার চেয়ারম্যান তথা নোয়াপাড়ার এই বিধায়ক।

প্রসঙ্গত, ভাটপাড়ার দীর্ঘদিনের বিধায়ক এবং পুরপ্রধান ছিলেন অর্জুন সিং। এবার তিনি সাংসদ হওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন। তাতেই ঘটেছে বিপত্তি। কারণ গত দু’বারের সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদীকেই ফের প্রার্থী করেছেন মমতা। দলের আরপ বড় দায়িত্ব এবং রাজ্যের মন্ত্রিত্বের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল অর্জুনকে। যদিও তাতে সন্তুষ্ট হননি অর্জুন।

দলে থেকে বিরোধিতা যে তিনি করবেন তা অনেক আগেই স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন অর্জুন। দলের মধ্যে থেকে কোন্দল করা তাঁর পছন্দ নয়। সেই কারণেই দলত্যাগের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলেন তিনি। যদিও দল বদলের পরে অন্য কারণ দেখিয়েছেন অর্জুন সিং। বায়ুসেনার এয়ার স্ট্রাইক নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশ্ন তলায় তিনি দল ছেড়েছেন। অর্জুনের কথায়, “নরেন্দ্র মোদী দেশের জন্য কিছু করে দেখিয়েছেন। অথচ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশ্ন তুলেছেন যে জঙ্গিদের দেহ কোথায়?”