নয়াদিল্লি: আগেই আভাস দিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদী, বাড়তে পারে লকডাউন। এবার খুব সম্ভবত, জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণে সেই কথা জানাবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শনিবার দেশের সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠক করবেন মোদী। সম্ভবত সেখানেই লকডাউনে নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে ইতিমধ্যেই বেশ কয়কেটি রাজ্য সরকার মোদীকে লকডাউন বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছেন। সেক্ষেত্রে বাড়তে পারে লকডাউন।

ইতিমধ্যেই ওড়িশা সরকার রাজ্যে লকডাউন বাড়িয়ে ৩০ এপ্রিল অবধি করেছে। কেন্দ্রের নির্দেশে সারা দেশও হয়তো সেই রাস্তায় হাঁটতে পারে। তবে লকডাউনের ক্ষেত্রে কিছুটা শিথিলতাও আসতে পারে। হয়তো লোকজনের যাতায়াত কিছুটা সীমাবদ্ধ করা হবে। হতে পারেবেশ কিছু যান চলাচলের ক্ষেত্রে ছাড় মিলবে। তবে রেল পরিষেবা চালু হবে কিনা, তা নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়েছে।

অন্যদিকে স্কুল-কলেজ, বা ধর্মীয় উপাসনা স্থল এখন না খোলার সম্ভাবনাই বেশি। যে সকল জায়গায় প্রচুড় ভিড় হয়, সেই এলাকাগুলিতে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা থাকতে পারে। আরবিআই জানিয়েছে, লকডাউনের জেরে ভেঙে পড়েছে দেশের অর্থনীতি। এমন অবস্থায় দেশীয় অর্থনৈতিক পরিকাঠামো ঠিক করতে কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিৎ কেন্দ্রের।

সেক্ষেত্রে দেশের মধ্যে বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে ছাড় দিতে পারে কেন্দ্রীয় সংস্থা। কিন্তু যাত্রীসংখ্যা বেঁধে দেওয়া হতে পারে। রেল চললেও বলা বাহুল্য নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা।

অন্যদিকে ২১ দিনের এই লকডাউন চলাকালীনও দেশের যে যে জায়গায় সংক্রমণ ছড়িয়েছে, সেই জায়গার প্রতি কঠোর হতে পারে কেন্দ্র। নতুন করে সংক্রমণ যাতে না ছড়ায় সেদিকে কড়া দৃষ্টি দেবে সরকার।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।