পোর্ট লুইস: ক্রেডিট কার্ডের অপব্যবহার করেছেন৷ এমনই অভিযোগ উঠেছে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে৷ বিতর্ক সামাল দিতে পদ থেকে ইস্তফা দিতে বাধ্য হলেন আমিনা ফাকিম৷ তিনি মরিশাসের প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট৷ শনিবার তিনি ইস্তফা দেন৷ জানা গিয়েছে সেই ইস্তফাপত্রটি গৃহীত হয়েছে৷

আরও পড়ুন: জৈব রসায়ন গবেষণায় নিমগ্ন এই রাষ্ট্রপ্রধান

বিশিষ্ট প্রকৃতি বিজ্ঞানী আমিনা ছিলেন দুনিয়ার ক্ষমতাশীন মহিলাদের তালিকায় অন্যতম৷ তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি ক্রেডিট কার্ডের অপব্যবহার করে ২৭হাজার ডলারের শপিং করেছেন৷ প্রথমে সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন আমিনা৷ জানিয়েছিলেন, অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যে৷ টুইট করেও একই দাবি করেছিলেন৷ লিখেছিলেন, ‘‘এটা বলা হচ্ছে আমি পদ থেকে ইস্তফা দিতে চলেছি৷ কিন্তু আমি এখনও পদে আছি৷’’

জানা গিয়েছে, ওই ক্রেডিট কার্ডটি আমিনাকে দিয়েছিল একটি এনজিও৷ সমাজসেবার কাজে অর্থ ব্যবহার করার জন্য সেটি তাঁকে দেওয়া হয়েছিল৷ কিন্তু অভিযোগ, তিনি ব্যক্তিগত কাজে সেটি ব্যবহার করেছিলেন৷ ওই ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে ২৭ হাজার ডলারের শপিং করেছিলেন৷

আরও পড়ুন: প্রথম মহিলা প্রেসিডেন্ট পেল মরিশাস

খবরটি প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে যায়৷ বিরোধীরা বিষয়টিকে হাতিয়ার করে বিক্ষোভ দেখায়৷ এর জেরে অস্বস্তিতে পড়েন সেদেশের প্রধানমন্ত্রী৷ সরকারের তরফ থেকে চাপ দেওয়া হয় ইস্তফা দেওয়ার৷ ২০১৫ সালের জুন মাসে প্রেসিডেন্ট হন আমিনা৷ তিনি বিশিষ্ট জৈব রাসায়নিক বিজ্ঞানী৷

১৯৫৯ সালে দ্বীপরাষ্ট্রের এক কোনায় সাগরতীরের ছোট্ট গ্রাম সুরিনামে জন্ম আমিনা গারিব ফাকিমের৷ পরবর্তী সময়ে শুধু মরিশাসের নয় আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে জৈব রসায়ন বিজ্ঞানী হিসেবে তিনি পরিচিত হন৷ বিভিন্ন সময়ে আন্তর্জাতিক সম্মান পেয়েছেন তিনি৷