উলান-উদে (রাশিয়া): বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের মঞ্চে বিশ্বরেকর্ড মেরি কমের। রাশিয়ার উলান-উদে’তে অনুষ্ঠিত বক্সিং বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের মঞ্চে ফের পদক নিশ্চিত করলেন ভারতীয় বক্সার। সেইসঙ্গে কিউবার বক্সিং কিংবদন্তি ফেলিক্স স্যাভনকে পিছনে ফেলে বিশ্ব মিটে সর্বাধিক আটটি পদক জয়ের নজির গড়লেন মণিপুরের বক্সার।

এর আগে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের মঞ্চে ৬টি স্বর্ণপদক ও ১টি রৌপ্যপদক গলায় ঝুলিয়েছেন মেরি কম। বৃহস্পতিবার কলম্বিয়ান প্রতিদ্বন্দ্বীকে ৫-০ ব্যবধানে পরাজিত করে শেষ চার নিশ্চিত করলেন মেরি। সেইসঙ্গে বিশ্ব মিটের আসরে রেকর্ড অষ্টম পদক নিশ্চিত করলেন ছ’বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন।

আরও পড়ুন: একজোড়া জুতো ও একমাত্র টি-শার্টই ছিল ভরসা, লড়াইয়ের স্মৃতিতে নস্ট্যালজিক বুমরাহ

ওয়েট ক্যাটেগরি বদলে প্রথমবার ৫১ কেজি বিভাগে আসন্ন টোকিও অলিম্পিকের টিকিট নিশ্চিত করার অপেক্ষায় ভারতের এই মহিলা বক্সার। সেই লক্ষ্যে রাশিয়ার মাটিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের মঞ্চে আপাতত অপ্রতিরোধ্য রিও অলিম্পিকের ব্রোঞ্জ পদকজয়ী। কোয়ার্টার ফাইনালে কলম্বিয়ার ইনগ্রিত ভ্যালেন্সিয়াকে ২৯-২৮, ৩০-২৭, ২৯-২৮, ৩০-২৭, ২৯-২৮ ব্যবধানে পরাজিত করেন তৃতীয় বাছাই মেরি। আগামী ১২ অক্টোবর সেমির লড়াইয়ে দ্বিতীয় বাছাই তুরস্কের বুসেনাস চাকিরোগলুর মুখোমুখি হবেন তিনি।

আরও পড়ুন: নজির গড়ে স্টেডিয়ামে বসেই ফুটবল দেখবেন ইরানি মহিলারা

৭ নম্বর সোনা জয়ের লক্ষ্যে ‘ম্যাগনিফিসেন্ট মেরি’ টুর্নামেন্টের শুরুটা করেন দুর্দান্তভাবে। তৃতীয় বাছাই মেরী কম প্রথম রাউন্ডে বাই পেয়েছিলেন। ৫১ কেজি বিভাগের প্রি-কোয়ার্টারে তিনি ৫-০ ব্যবধানে পরাজিত করেন থাইল্যান্ডের জুটামাস জিটপংকে। সেইসঙ্গে ঢুকে পড়েন শেষ আটের বৃত্তে। বৃহস্পতিবার শেষ আটের বাউটে প্রতিদ্বন্দীকে বাগে আনতে কিছুটা সময় নেন মেরি। এরপর ছ’বার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের অভিজ্ঞতাকে সঙ্গী করে বাজিমাত করে যান ভারতীয় বক্সার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.