নয়াদিল্লি: অতিরিক্ত করের বোঝা আর গাড়ি বিক্রিতে ভাটার জেরে কোপ করছে কর্মীদের উপর। তার ফলে তিন হাজার অস্থায়ী কর্মী ছাঁটাই করেছে মারুতি সুজুকি। দিল্লিতে বার্ষিক সাধারণ সভায় সে কথা ব্যক্ত করলেন চেয়ারম্যান আর সি ভার্গব। পাশাপাশি তিনি জানান, মারুতি সুজুকি আপাতত ঘুরে দাঁড়াতে জোর দিচ্ছে কমপ্রেসড ন্যাচরাল গ্যাস (সিএনজি) চালিত গাড়ি তৈরিতে ।

জুলাইয়ের সমীক্ষা জানিয়েছে, টানা ন’মাস গাড়ির ধরে বিক্রি কমতে কমতে এখন কার্যত তলানিতে এসে ঠেকেছে। নানা অফারের পাশাপাশি দাম কমিয়েও গাড়ি বিক্রিতে বাড়ানো যাচ্ছে না। বিশেষজ্ঞদের অভিমত, গোটা বিশ্বেই অর্থনীতিতে মন্দ গতি। যার প্রভাব পড়েছে ভারতেও। মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমে গিয়েছে। যা পরিস্থিতি ক্রেতারা ভোগ্যপণ্যের চেয়ে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দিকে ঝুঁকছেন৷ তার সঙ্গে যোগ হয়েছে গাড়ি প্রস্তুতকারী সংস্থাগুলির উপর সরকারের ‘সেফটি নর্মস’ বা নিরাপত্তার বিধিনিষেধ এবং অতিরিক্ত কর চাপানো।

এদিন বার্ষিক সাধারণ সভায় চেয়ারম্যান আরসি ভার্গব জানিয়েছেন, সেফটি নর্মস এবং উচ্চ হারে করের ধাক্কায় গাড়ি উৎপাদনের খরচ বেড়ে গিয়েছে। তাই ৩০০০ চুক্তিভিত্তিক কর্মীদের চুক্তি পুনর্নবীকরণ করা যায়নি। তবে ওই কর্মীদের পাওনা গন্ডা কী ভাবে মেটানো হয়েছে এবং আদৌ কোনও ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়েছে কি না তা নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি ভার্গব।

এই পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়ানোর ব্যাখ্যা করে চেয়ারম্যান জানান, এবার মারুতি সুজুকি নতুন করে সিএনজি চালিত গাড়ি উৎপাদনের দিকে জোর দিচ্ছে। মারুতির সূত্রে জানা গিয়েছে, চলতি বছরেই অন্তত ৫০ শতাংশ সিএনজি চালিত গাড়ির উৎপাদন বৃদ্ধি করার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে৷