মেলবোর্ন: চোট-আগাতে জর্জরিত মারিয়া শারাপোভার গত মরশুমের বেশিরভাগ সময় কেটেছে কোর্টের বাইরে৷ চোট সারিয়ে নতুন বছর শুরু করেছেন ব্রিসবেন ইন্টারন্যাশনালে৷ ওয়াইন্ড কার্ড এন্ট্রি হিসেবে খেলতে নেমে শুরুতেই কোয়ালিফায়ার প্রতিপক্ষের কাছে হারতে হলেও ভালো খবর অপেক্ষা করে ছিল রাশিয়ান টেনিস সুন্দরীর জন্য৷ পাঁচ বারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী তারকা ওয়াইল্ড কার্ড এন্ট্রি হিসেবে খেলতে নামবেন আরও একটি টুর্নামেন্টে৷ সেটা আবার সাধারণ ডব্লিউটিএ টুর্নামেন্ট নয়, বরং বছরের প্রথম মেজর টুর্নামেন্ট অস্ট্রেলিয়া ওপেনে, যেথানে তিনি বিজয় পতাকা উড়িয়েছিলেন ২০০৮ সালে৷

আরও পড়ুন: চাকিংয়ের দায়ে নির্বাসিত নাইট রাইডার্সের নতুন অতিথি

ব্রিসবেন ইন্টারন্যাশনালের প্রথম রাউন্ডেই কোয়ালিফায়ার জেনিফার বার্ডির কাছে ৬-৩, ১-৬, ৬-৭ (৩-৭) সেটে পরাজিত হন মাশা৷ ফলে ব্যক্তিগত ব়্যাংকিংয়ে নেমে যেতে হয় ১৪৭ নম্বরে৷ স্বাভাবিকভাবেই ব়্যাংকিং অনুযায়ী স্বাভাবিকভাবে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের মূলপর্বে খেলা সম্ভব ছিল না প্রাক্তন বিশ্বসেরা তারকার পক্ষে৷ তাই তাঁকে ওয়াইন্ড কার্ড দিয়ে টুর্নামেন্টে সামিল করার সিদ্ধান্ত নেয় অজি লন টেনিস সংস্থা৷

এই নিয়ে মোট ১৬ বার মেলবোর্ন পার্কে খেলতে নামবেন মারিয়া৷ ২০০৩ সালে প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে খেলতে নেমেছিলেন শারাপোভা৷

আরও পড়ুন: ডার্বি জিতে লিগ কাপ ফাইনালের দিকে এক পা বাড়াল সিটি

অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ওয়াইন্ড কার্ড পাওয়ার পর শারাপোভা বলেন, ‘এটা একটা অসাধারণ অনুভূতি৷ অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের মূলপর্বে খেলতে পারা দারুণ বিষয়৷ টুর্নামেন্টে আমার অবিস্মরণীয় কিছু স্মৃতি রয়েছে৷ চ্যাম্পিয়নের ট্রফি তুল ধরা থেকে কঠিন কিছু ফাইনাল ম্যাচ হারার স্মৃতি এখনও টাটকা৷ চেনা কোর্টে আবার প্রতিদ্বন্দ্বীতার সুযোগ পাওয়া ভাগ্যের বিষয়৷’

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.