মাদ্রিদ: সান্তিয়াগো বার্নাব্যু’য়ের গ্যালারি ফাঁকা থাকলেও পারফরম্যান্সে প্রভাব পড়ল না লস ব্ল্যাঙ্কোসদের। শনিবার বার্সেলোনার পর রবিবার জয় দিয়েই লকডাউন পরবর্তী লিগ অভিযান শুরু করল রিয়াল মাদ্রিদ। ঘরের মাঠে আইবার এফসিকে ৩-১ গোলে হারিয়ে বার্সাকে খুব বেশি এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ দিল না জিদানের ছেলেরা।

এমনিতেই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের দু’পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে করোনা পরবর্তী সময় অভিযান শুরু করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। তার উপর মায়োর্কাকে গতদিন ৪-০ গোলে হারিয়েছেন মেসিরা। স্বাভাবিকভাবেই আইবারের বিরুদ্ধে জয় ব্যতিত অন্য কোনও ফলাফল অনেকটা এগিয়ে দিত বার্সাকে। তাই শুরু থেকেই ম্যাচের রাশ নিজেদের দখলে রেখে খেলা শুরুর চেষ্টা করে রিয়াল। গোলের জন্য খুব বেশি অপেক্ষা করতে হয়নি। শনিবার বার্সার হয়ে দ্বিতীয় মিনিটেই গোল তুলে নিয়েছিলেন আর্তুরো ভিদাল। আর এদিন লস ব্ল্যাঙ্কোসদের হয়ে চতুর্থ মিনিটে খাতা খোলেন জার্মান মিডফিল্ডার টনি ক্রুজ।

বক্সের মধ্যে বল পেয়ে দর্শনীয় শটে বল জালে রাখেন ক্রুস। শরীর শূন্যে ছুঁড়েও যার নাগাল পাননি বিপক্ষ গোলরক্ষক। রিয়ালের দ্বিতীয় গোল ম্যাচের ৩০ মিনিটে। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে দুরন্ত টিমগেমের ফসল এটি। যদিও গোলের নেপথ্য কারিগর ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনজেমা। হ্যাজার্ডকে লক্ষ্য করে তাঁর ডিফেন্স চেরা থ্রু’য়ের কোনও উত্তর ছিল না আইবার ডিফেন্সের কাছে। গোলটা চাইলে নিজেই জালে রাখতে পারতেন বেলজিয়ান মিডিও। কিন্তু এক্ষেত্রে নিঃস্বার্থভাবেই হ্যাজার্ড তা ঠেলে দেন ফাঁকায় থাকা র‍্যামোসের উদ্দেশ্যে। ফাঁকা গোলে বল ঠেলে ব্যবধান ২-০ করেন স্প্যানিশ ডিফেন্ডার।

এর ঠিক ৭ মিনিট বাদে স্কোরশিটে নাম তুলে ম্যাচ প্রথমার্ধেই মুঠোয় ভরে ফেলেন ব্রাজিলিয়ান লেফট-ব্যাক মার্সেলো। বিপক্ষ বক্সে প্রতিহত হওয়া একটি বলে চকিতে নেওয়া শট জড়িয়ে যায় জালে। গোলের পর হাঁটু গেড়ে বসে হাত উপরে তুলে ‘ব্ল্যাক_লাইভস_ম্যাটার’ আন্দোলনকে সমর্থন জানান ব্রাজিলিয়ান। দ্বিতীয়ার্ধে আইবার একটি গোল পরিশোধ করলেও তা কোনওভাবেই পর্যাপ্ত ছিল না তাদের জন্য। ৩-১ গোলে ম্যাচ জিতে তিন পয়েন্ট নিশ্চিত করে রিয়াল মাদ্রিদ।

যদিও ম্যাচ জয়ের মধ্যেও দুই ফুটবলারের চোট চিন্তার কারণ হতে পারে জিদানের। ৬১ মিনিটে হ্যাজার্ড এবং র‍্যামোসকে একইসঙ্গে তুলে নেন তিনি। মাঠ ছাড়ার পর দু’জনকেই আইসপ্যাক পায়ে বেঁধে বসে থাকতে দেখা যায়। নিয়ম মেনে পাঁচটি পরিবর্তনই নিয়েছেন রিয়াল কোচ, যার সবগুলোই দ্বিতীয়ার্ধে। জয়ের ফলে ২৮ ম্যাচ পর ৫৯ পয়েন্ট নিয়ে বার্সাকে তাড়া করা জারি রাখল লস ব্ল্যাঙ্কোসরা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ